রবিবার্তা ডেস্ক
করোনাভাইরাসের টিকা হাতের নাগালে চলে আসার পর বিশ্বজুড়ে এখন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা পাওয়ার গাইডলাইন তৈরি হচ্ছে। এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন টিকা সরবরাহের গাইডলাইন প্রকাশ করেছে। এতে ডাক্তার, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীর পাশাপাশি কেয়ারহোম বা বৃদ্ধাশ্রমে বাস করা বয়স্ক নাগরিকদের সবার আগে টিকা দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

অন্যান্য দেশও ডাক্তার-নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী ও বৃদ্ধদের সবার আগে টিকা দেয়ার কথা জানিয়েছে। অন্যদিকে সব নাগরিককে বিনামূল্যে টিকা দেয়ার একটি আইস পাস করেছে জাপান। এএফপি, ডেইলি মেইল।

ব্রিটেনের স্বাস্থ্য ও সামাজিক কেয়ার কর্মকর্তারা টিকা প্রাপ্তির অগ্রাধিকার ঘোষণা করেছেন বুধবার। তাতে স্বাস্থ্যকর্মী ও বৃদ্ধদের অগ্রাধিকারের কথা বলা হয়েছে। ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা ৯৫ শতাংশ কার্যকর এবং আগামী সপ্তাহ থেকে সরকার এই টিকা মানুষের মধ্যে প্রয়োগের অনুমতি দেয়ার পর আসে অগ্রাধিকারের ঘোষণা।

ব্রিটেনে করোনার দ্বিতীয় ঢেউও মারাত্মক। ফলে টিকা ও করোনাই এখন ব্রিটিশ সরকারের অগ্রাধিকার বলে ঘোষণা দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক। ব্রিটেন ফাইজারের টিকার চার কোটি ডোজের অর্ডার দিয়েছে। সেগুলো থেকে প্রথম দফায় দুই ভাগে চার লাখ করে আট লাখ টিকা আসবে।

তারপর পর্যায়ক্রমে আসতে থাকবে চালান। এ বছর অর্থাৎ ডিসেম্বরে পাওয়া যাবে এক কোটি টিকা। বাকিগুলো আগামী বছরের প্রথম তিন মাসে পাবে দেশটি। প্রথমে কথা ছিল ব্রিটেনের ন্যাশনাল হেলথ সিস্টেম বা এনএইচএস কর্মীরা টিকাপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন।

কিন্তু পরে সেটি থেকে সরে এসে কেবল ডাক্তার, নার্স-স্বাস্থ্যকর্মী এবং ওল্ডহোমে থাকা বৃদ্ধ ও গুরুতর অসুস্থদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকা দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

মার্কিন বিশেষজ্ঞদের একটি প্যানেল বলেছে, স্বাস্থ্যকর্মী ও নার্সিং হোমে বসবাসকারীদের টিকা দেয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেয়া উচিত। স্বাস্থ্যকর্মীর মধ্যে ডাক্তার, নার্স, টেকনিশিয়ান ও সাপোর্ট স্টাফ অন্তর্ভুক্ত।

মার্কিন ডিজেজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন- সিডিসির বিশেষজ্ঞদের একটি উপদেষ্টা কমিটির প্যানেল টিকার এই অগ্রাধিকারের পরামর্শ দেয়। ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) জরুরিভিত্তিতে টিকার অনুমোদন দেয়ার পর রাজ্য ও স্থানীয় প্রশাসন কর্তৃপক্ষের হাতে সেই টিকা তুলে দেয়ার বিষয়েও একমত পোষণ করেন উপদেষ্টা কমিটির সদস্যরা।

উপদেষ্টা কমিটির চেয়ারম্যান জোসে রোমেরো বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি আমার ভোটে এই টিকা সরবরাহের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সুবিধা পাওয়া, কম ক্ষতি নিশ্চিত করা এবং স্বাস্থ্য খাতে বিদ্যমান অন্যায্যতা কমিয়ে এনে ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার বিষয়টি প্রতিফলিত হয়েছে।’

যুক্তরাষ্ট্র যে দুটি গ্রুপকে টিকার দেয়ার অগ্রাধিকার বাছাই করেছে সেগুলোর জনসংখ্যা হবে দুই কোটি ৪০ লাখের মতো। আর ফাইজার ও মডার্না থেকে চার কোটি টিকা পাওয়ার চুক্তি রয়েছে দেশটির। প্রতিটি করোনা রোগীকে দুই ডোজ করে টিকা দেবে যুক্তরাষ্ট্র।

একই কোম্পানির দুটি ডোজ দেয়া হবে। ফাইজারের ক্ষেত্রে প্রথম ডোজ দেয়ার তিন সপ্তাহ পর দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হবে। আর মডার্নার ক্ষেত্রে প্রথম ডোজ নেয়ার চার সপ্তাহ পর দেয়া হবে দ্বিতীয় ডোজ।

সিডিসির সারা অলিভার জানিয়েছেন, ডিসেম্বরের পর প্রতি সপ্তাহে ৫০ লাখ থেকে এক কোটি করে টিকার ডোজ পেতে থাকবে কর্তৃপক্ষ। সিডিসির বিজ্ঞানী ন্যান্সি মেসিনার জানিয়েছেন রাজ্যগুলো আশা করছে, টিকা পাওয়ার পর তিন সপ্তাহের মধ্যে তাদের স্বাস্থ্যকর্মীদের টিকা দেয়ার কাজ শেষ করতে পারবে।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে মৃতের ৪০ শতাংশ বা এক লাখের বেশি নার্সিং ও ওল্ডহোমের বাসিন্দা ছিলেন। এ কারণে তারা বৃদ্ধদের টিকাদানকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। অন্যদিকে দেশটির স্বাস্থ্য খাতে জড়িত মানুষ দুই কোটি ১০ লাখের মতো। এরা সরকারি ও বেসরকারি চিকিৎসাসেবার সঙ্গে সংযুক্ত।

প্রথম ধাপের পর দ্বিতীয় পর্যায়ে কাদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে সেটি নিশ্চিত করা হয়নি। তবে বৃদ্ধদের দেয়ার পর জরুরি সেবার সঙ্গে যুক্ত কর্মীদের অগ্রাধিকার দেয়ার প্রস্তাব রয়েছে। বিনামূল্যে টিকা সরবরাহ করার একটি বিল জাপানের পার্লামেন্টের নিুকক্ষের পর উচ্চকক্ষেও পাস হয়েছে।

এর অর্থ হচ্ছে স্থানীয় সরকারগুলো বিনামূল্যে নাগরিকদের টিকা দেবে। এর অর্থ পরিশোধ করবে কেন্দ্রীয় সরকার। জাপান বর্তমানে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলা করছে। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার হোটেল ও বার পুনরায় বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা।

টিকাদান ও টিকা উৎপাদনের ক্ষেত্রে ভারতের অভিজ্ঞতা বেশ ভালো। দেশটির জনসংখ্যা দেড়শ’ কোটির মতো হলেও টিকাদানে কোনো সমস্যা হবে না বলে মনে করছেন ভারতীয় বিশেষজ্ঞরা। তবে চাহিদামতো টিকা পাওয়া প্রথম পর্যায়ে কঠিন হতে পারে।

টিকার অগ্রাধিকারের ক্ষেত্রে সরকারি-বেসরকারি স্বাস্থ্যকর্মী ও ফ্রন্টলাইনে কাজ করা কর্মীরা এক নম্বরে থাকবেন বলে জানিয়েছেন দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন।

error: Content is protected !!