কুমারখালী প্রতিনিধি : বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কুমারখালীতে সর্বাত্মক কঠোর লকডাউনের তৃতীয় দিনে লকডাউন বাস্তবায়নে কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুজ্জামান তালুকদার এর নেতৃত্বে মাঠে নেমেছে পুলিশ।

পুলিশের পাশাপাশি উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে মোবাইল টিম মাঠে কাজ করছে।

সকাল থেকেই উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে আইনশৃংখলা বাহিনী মাঠে তৎপরতা দেখা গেছে। কুমারখালী শহরসহ মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়ে যানবাহন চলাচলে লকডাউনের নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে দেখা গেছে। অকারণে কেউ যানবাহন নিয়ে বের হলে তাদের বুঝিয়ে ফিরিয়ে দিচ্ছে পুলিশ সদস্যরা। কেউ লকডাউনের নির্দেশনা অমান্য করলে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করছে।

এদিকে উপজেলার ওষুধের দোকান ছাড়া নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান (মুদি, কাঁচাবাজার) দুপুর ১২টার পর বন্ধ রয়েছে।

অন্য যেকোনো দিনের তুলনায় শহরে লোকসমাগম অনেকটা কম। জরুরি প্রয়োজনে কিছু মানুষ ঘর থেকে বের হলেও গণপরিবহন, মার্কেট ও বিপনি বিতানগুলো বন্ধ রয়েছে।

বুধবার (২৩ জুন) সকালে লকডাউনের শুরু থেকে কুমারখালী উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এই চিত্র দেখা গেছে। বিভিন্ন স্থানে চেকপোস্টে বসিয়ে পুলিশ নজরদারী চালাচ্ছে। উপজেলার ব্যস্ততম সড়কগুলো এক প্রকার জনশূন্য হয়ে পড়েছে।
ওসি কামরুজ্জামানের পাশাপাশি এস আই আরিফুল ইসলাম, এস আই খাইরুল, এস আই সুমন সহ কুমারখালী থানা পুলিশকে মাঠে বেশ তৎপর দেখা গেছে।
এসময় কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, কঠোরভাবে লকডাউন বাস্তবায়ন করতে পুলিশ ও উপজেলা প্রশাসন তৎপর রয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের চেকপোস্টে তল্লাশি, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে মোবাইল টিম ও র‌্যাব মাঠপর্যায়ে কাজ করছে। করোনা সংক্রমণ রোধে লকডাউনের সকল রকম নির্দেশ ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। সকলে সহযোগিতা করলে লকডাউন বাস্তবায়নসহ করোনা মোকাবেলায় সহজ হবে।

error: Content is protected !!