নিজস্ব প্রতিবেদক : ৫ জুন, শনিবার; বিশ্ব পরিবেশ দিবস। ‘মুজিববর্ষে অঙ্গীকার করি, সোনার বাংলা সবুজ করি’ প্রতিপাদ্যে নিয়ে কুষ্টিয়ায় পালিত হয়েছে বিশ্ব পরিবেশ দিবস ( জাতীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান-২০২১) পালিত হয়েছে। বাংলাদেশ জীববৈচিত্র সংরক্ষণ ফেডারেশন (বিবিসিএফ) এর কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসাবে মানুষ মানুষের জন্য কুষ্টিয়ার আয়োজনে শনিবার বিকেলে শহরের ছয় রাস্তার মোড়ে র‌্যালী ,আলোচনা সভা ও বৃক্ষরোপণ কমসূচী অনুষ্ঠিত হয়েছে। আলোচনা সভা ও বৃক্ষরোপন কর্মসূচির উদ্ভোদন করেন বাংলাদেশ জীববৈচিত্র সংরক্ষণ ফেডারেশন (বিবিসিএফ) এ সহ সভাপতি ও মানুষ মানুষের জন্য কুষ্টিয়ার সভাপতি “ দি ফক্স ম্যান” শাহাবউদ্দিন মিলন। এসময় অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ জীববৈচিত্র সংরক্ষণ ফেডারেশন (বিবিসিএফ) এর নির্বাহী সদস্য ও কুষ্টিয়া বার্ড ক্লাবের সভাপতি পাখি গবেষক এস আই সোহেল , বিশিষ্ট কন্ঠশিল্পী ্ও গীতিকার মীর কুশল,মানুষ মানুষের জন্য কুষ্টিয়ার সদস্য ও কুষ্টিয়ার কন্ঠ-২৪ পত্রিকার সম্পাদক নাব্বির আল নাফিজ, ইব্রাহীম জনি, কায়েস হোসেন, বিপ্লব খন্দকার, মাহমুদুল হাসান নিরব, আরিফ হোসেন, আকাশ। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, জাতিসংঘ পরিবেশ কর্মসূচি এর ঘোষণা অনুযায়ী ‘প্রতিবেশ পুনরুদ্ধার, হোক সবার অঙ্গীকার’ প্রতিপাদ্যে এবং ‘ প্রকৃতি সংরক্ষণ করি, প্রজন্মকে সম্পৃক্ত করি’ শ্লোগানে বিভিন্ন দেশ এ বছর বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপন করছে। আমাদের দেশে শুধু পলিথিন, তামাক পরিবেশ নষ্ট করছে না, বর্তমানে সব থেকে বড় পরিবেশ নষ্টকারী এবং ধ্বংসকারী নীরব রাক্ষস দেশের পারটেক্স, প্লাইউড কারখানা গুলো। দেশে যার সংখ্যা ৪৪ টি। এদের প্রতিদিন খোরাক দশ থেকে চোদ্দ টন, এবং এস,ডি,এস মেশিনারির খোরাক এর দ্বিগুণ, আর একটি নতুন হচ্ছে সব থেকে বড় ময়মনসিংহে যার খোরাক শুনলে মাথাই নষ্ট হয়ে যাবে কিন্তু দেখবার কেহই নেই। এভাবে চলতে থাকলে এই দেশ একদিক মরুভূমি তে রুপান্তরিত হবে। তাছাড়াও অক্সিজেন পেতে বড় সমস্যা হয়ে দাড়াবে।শুধু মানুষ নয় পশুপাখি, কিট,পতঙ্গ কেহই রক্ষা পাবেনা, অতিমাত্রা গাছ কাটার ফলে জীববৈচিত্র ধ্বংসের হবে পাখি প্রজনন, বংশ বিস্তারে বাধা, জীবিত যারা আছে তারা বিনাশ হবে।আমরা সকলে সচেতন হই, আজ দেশে নীরবে কোটি কোটি বৃক্ষ নিধন হচ্ছে, কিন্তু সেই পরিমাণমাপক গাছ লাগানো হচ্ছে না, তাই আসুন আমাদের পরিবেশ রক্ষা এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মদের কথা ভেবে বেশী বেশী বৃক্ষ রোপণ করি সেই সাথে করোনাভাইরাসের কারণে মানবজাতি ও অর্থনীতি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হলেও প্রকৃতি যেন কিছুটা প্রাণ ফিরে পেয়েছে। সারাবিশ্ব একসঙ্গে ‘লকডাউন’ হওয়ায় পরিবেশ দূষণ কমেছে, পৃথিবী একটি গাঢ় সবুজ গ্রহে পরিণত হয়েছে। এই মহামারী থেকে শিক্ষা নিয়ে মানুষ একটি সবুজ-পৃথিবী সৃষ্টিতেই মনোনিবেশ করবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। এসময় সংগঠনের সদস্য জিকু, সাব্বির আহসান, সিরাজ ফালাসি, আডিব আহম্মেদ রানা, নাজমুল কবির পলাশ, আকাশ,সদ্দাম, সেলিম, সোভন, নয়ন সবুজ সহ আরও অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

error: Content is protected !!