রবিবার্তা ডেস্ক
কুষ্টিয়ার মিরপুরে কেজি শ্রেনীর স্কুল ছাত্রী(৮) বছর বয়সী শিশুকণ্যাকে ধর্ষণ অভিযোগে বাড়ীর ভাড়াটিয়ার ছেলে ফারহান রহমান দীপ (১৪) নামের কিশোরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার দুুপুরে শিশুকণ্যার মা বাদি হয়ে মিরপুর থানায় শিশু ধর্ষণ অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের দ:বি ৯(১) ধারায় মামলা করেন। বাদির দেয়া এজাহারভুক্ত একমাত্র অভিযুক্ত দীপকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মিরপুর থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক আতিকুর রহমান।
এজাহার সুত্রে জানা যায়, চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্সের বীমাকর্মী তাইফুর রহমান উজ্জল কর্মসূত্রে মিরপুর উপজেলার ঘটনাস্থল ওই শিশুকন্যার মায়ের বাড়িতে স্ব-পরিবারে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতো। গত শনিবার সন্ধায় ফারহান রহমান দীপ শিশুকণ্যাকে চকলেট দেয়ার নাম করে ঘরে ডেকে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষন করে। এঘটনায় আহত শিশু কন্যা সেখান থেকে রেড়িয়ে এসে তার মা’কে সব খুলে বলে।

শিশু কন্যার মায়ের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, আমার এতোটুকু অবুঝ শিশুকে এভাবে আহত করলো। ওই ছেলেটিও শিশু। বিষয়টি মেয়ের মুখে শোনার পর পরিবারের অন্যদের সাথে আলাপ আলোচনা করে গতকাল রোববার নিজেরাই উদ্যোগ নিয়ে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসকের কাছে যায়। সেখানে ডাক্তারি পরিক্ষায় প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে আজ সোমবার দুপুরে মিরপুর থানায় মামলা করেছি।

গ্রেফতার কিশোর দীপ(১৪) চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা এলাকার বাসিন্দা বীমাকর্মী তাইফুর রহমান উজ্জলের ছেলে। তারা স্ব-পরিবারে ভুক্তভুগির বাড়ীতে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতো।

ভুক্তভুগি ঐ স্কুল শিক্ষার্থী কুষ্টিয়া শহরের আলিয়া বেগম মর্ডান স্কুলের কেজি শ্রেণির ছাত্রী।

মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী কিশোর দীপকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ভুক্ত ভুগি ঐ শিশুর মায়ের দেয়া এজাহারভুক্ত আসামী ফারহান রহমান দীপকে ঘটনাস্থলের ওই বাসা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ভুক্তভোগী শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা ইতোমধ্যেই সম্পন্ন হয়েছে। ঘটনার প্রাসঙ্গিক আলামত জব্দসহ মামলাটি তদন্তও শুরু করেছেন মামলার আইও।

error: Content is protected !!