রবিবার্তা ডেস্ক
বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস উপলক্ষে কুষ্টিয়া ডায়াবেটিক সমিতি ও মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ডায়াবেটিক হসপিটালের আয়োজনে কুষ্টিয়ায় বর্নাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য- “ডায়াবেটিস সেবায় পার্থক্য আনতে পারে নার্সরাই” শনিবার সকাল ৯টায় ডায়াবেটিক হসপিটাল চত্বর থেকে এক বর্নাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ডায়াবেটিক হসপিটালে এসে শেষ হয়। র‌্যালী শেষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। টেলিকনফারেন্সে মাধ্যমে অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু পরিষদের কেন্দ্রিয় সাধারণ সম্পাদক প্রধানমন্ত্রীর সাবেক রাজনৈতিক উপদেষ্টা ডা. এস এ মালেক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড.আ আ ম স আরেফীন সিদ্দিক। কুষ্টিয়া ডায়াবেটিক সমিতির সভাপতি মতিউর রহমান লাল্টুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সদর উপেজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা। প্রধান বক্তা ছিলেন কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ডাঃ এস এম মুসতানজিদ।

প্রধান অতিথি আতাউর রহমান আতা বলেন, ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে সরকার। বিশ্বে ডায়াবেটিক রোগ এখন অনেক বেশি বিস্তার লাভ করেছে। এটা শুধু বয়স্কদের রোগ নয়। সব বয়সেই এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই নিয়মিত ঔষধ সেবন ও খাদ্যাভাসের মাধ্যমে ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রনে রাখা যায়।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া ডায়াবেটিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোশফিকুর রহমান টর্লিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যলয়ের ট্রুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্টের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড.মাহবুব আরেফীন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যলয়ের কথা ও মানবিক অনুষদের ডিন ড. সরোয়ার মোর্শেদ রতন, কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাঃ মঈন উদ্দিন আহমেদ, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবু তৈয়ব বাদশা, হসপিটালের সিনিয়র মেডিকেল অফিসার ডাঃ লাল মহম্মদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন সমিতির সহ-সভাপতি হাফিজুর রহমান কালটু, সদস্য নিলুফার রহমান এ্যানি প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাংবাদিক আফম নুরুল কাদের।

উদ্বোধনী বক্তব্যে ডা.এস এ মালেক বলেন, আমাদেরকে সুস্থ সবলভাবে বেঁচে থাকতে হলে নিয়মিত ডায়াবেটিস আছে কি-না পরীক্ষা করতে হবে। ডায়াবেটিস হলে হতাশাগ্রস্থ হওয়া যাবে না, নিয়মতান্ত্রীক জীবন যাপন করতে হবে। তাহলেই আমরা সুস্থ সবল থাকতে পারব।

তিনি আরো বলেন, শুধু মাত্র ডায়াবেটিক রোগীরা না, সুস্থ ভাবে বেঁচে খাকতে সকলকেই সচেতন ও নিয়মতান্ত্রীক জীবন যাপন করতে হবে।

ড. আ আ ম স আরেফীন সিদ্দিক বলেন, সময়ের সাথে ডায়াবেটিক এর চিকিৎসা উন্নত হয়েছে। এ রোগটি প্রাথমিক অবস্থায় ধরা পরলে কোন সমস্যায় নয়। নিয়মতান্ত্রীক জীবন যাপন ও ডায়াবেটিস রোগ নির্ণয়ে পরীক্ষা করতে হবে।

প্রধান বক্তা ডাঃ এসএম মুসতানজিদ বলেন, সারাবিশ্বে ডায়াবেটিস রোগ দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। বেড়ে যাওয়ার কারণ আমরা অসচেতন। আমরা ডায়াবেটিস রোগ নির্ণয়ে পরীক্ষা পর্যন্ত করায় না। তাই অনেকেই ডায়াবেটিস রোগ আছে বুঝতে পারে না। এ জন্যই আমাদেরকে সুস্থ সবলভাবে বেঁচে থাকতে হলে নিয়মিত ডায়াবেটিস আছে কি-না পরীক্ষা করতে হবে। এবং নিয়মতান্ত্রীক জীবন যাপন করতে হবে। তাহলেই আমরা সুস্থ সবল থাকতে পারব। সভাপতির বক্তব্যে মতিউর রহমান লাল্টু বলেন, বর্তমান বিশ্বে ডায়াবেটিক সচেনতায় আধুনিক চিকিৎসা রেব হয়েছে তাই তাই ডায়াবেটিক নিয়ে ভয়ের কিছু নেই।

স্বাগত বক্তবে মোশফিকুর রহমান টর্লিন বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ কুষ্টিয়া ডায়াবেটিক সমিতি ও হসপিটাল সুনামের সঙ্গে চিকিৎসাসেবা প্রদান করে আসছে। এখানে গরিব অসহায় রোগীদের জন্য ফ্রি চিকিৎসাও ইনসুলিন দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।

error: Content is protected !!