দৌলতপুর প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে কথিত পীরের দরবারে রাশেদ (২৮) নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় পীর তাছের উদ্দীনসহ ৩০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। রোববার গভীর রাতে নিহতের বাবা আব্দুর রাজ্জাক বাদী হয়ে কল্যালপুর দরবার শরীফের কথিত পীর তাছের ফকিরসহ ১০ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ১৫-২০জনকে আসামী করে দৌলতপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৬ আসামীকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হলো ভেড়ামারা উপজেলার কাচারিপাড়ার মোসাব্বির হোসেনের ছেলে সাইদুর রহমান মিলন (৩৫), দৌলতপুর উপজেলার কল্যানপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে সামসুদ্দিন ওরফে শিমুল (২৮), সেনাইকুন্ডি গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে আব্দুস সাদি শিমুল (৩৫), ইনছাফনগর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে সুমন হোসেন (৩৫), হোসেনাবাদ গ্রামের জহুরুল ইসলামের ছেলে ইমরান আলী (২০) ও কল্যানপুর গ্রামের আফিরুল ইসলামের ছেলে শফিউল রহমান লিমন (১৯)।

এর আগে গত রোববার দুপুরে মোবাইল চুরির অভিযোগে দৌলতপুর উপজেলার কল্যানপুরে কথিত পীর তাছের ফকিরের দরবার শরীফের ভেতরে ওই যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। নিহত যুবক দৌলতপুর উপজেলার রিফাইতপুর ইউনিয়নের হরিনগাছী গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে।

দৌলতপুর থানার ওসি নাসির উদ্দিন জানান, মোবাইল ফোন চুরির অভিযোগে রোববার কল্যানপুর দরবারের ভেতর রাশেদ নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। ঘটনায় মামলার এজাহার নামীয় ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য আসামীরা পলাতক রয়েছে। তাদেরকেও গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

এদিকে নিহত যুবকের ময়নাতদন্ত শেষে সোমবার দুপুর ১২টার দিকে নিজ পরিবারের নিকট লাশ হস্তান্তর করা হলে তার দাফন সম্পন্ন করা হয়।

error: Content is protected !!