রবিবার্তা ডেস্ক
চুয়াডাঙ্গায় উদ্ধার হওয়া কিশোরের মরদেহের পরিচয় মিলেছে। নিহত নয়ন হোসেন (১২) কুষ্টিয়ার ইবি থানার নৃসিংহপুর গ্রামের দরিদ্র মিঠু শাহর ছেলে। সে শ্যালোইঞ্জিনচালিত পাখিভ্যান চালাত। ওই পাখিভ্যানটি ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যেই তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে জানায় পুলিশ।

শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে নিহত নয়নের মরদেহ তার স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ ব্যাপারে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন নয়নের বাবা।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার এসআই জসিম উদ্দীন বলেন, ছবি দেখে শনাক্তের পর নিহতের স্বজনরা থানায় আসে। রাত সাড়ে ১১টার দিকে তাদের কাছে নয়নের লাশ হস্তান্তর করা হয়।

নিহতের স্বজনদের বরাতে জানা যায়, পাখিভ্যান ছিনতাইয়ের জন্যই নয়নকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

নয়ন হোসেনের বাবা মিঠু শাহ জানান, শুক্রবার দুপুরে পাখিভ্যান নিয়ে ভাড়ার উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হয় নয়ন। শনিবার সকাল পর্যন্ত সে বাড়ি না ফিরলে আমরা ইবি থানায় একটি জিডি করি।

জানা যায়, শনিবার বেলা ১১টার দিকে অজ্ঞাতনামা হিসেবে নয়ন হোসেনের মরদেহ উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশ। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ছয়ঘরিয়া-বড়সলুয়া গ্রামের ঢমপুল মাঠের রাস্তার পাশে শুক্রবার রাতে হত্যা করা হয় নয়নকে।

error: Content is protected !!