ইবি প্রতিনিধি : ১১ বছর ধরে এক কমিটিতেই চলছে কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রদল। নয় বছর আগে শেষ হয় ১১১ সদস্যবিশিষ্ট বর্তমান কমিটির মেয়াদ। দীর্ঘবছর ধরে ‘বুড়ো কমিটি’তে থাকা নেতাকর্মীরা ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাজীবন শেষ করে কর্মজীবনে প্রবেশ করেছেন। আবার কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকও ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে নেতৃত্বে আছেন। ফলে কার্যত অচল অবস্থায় রয়েছে সংগঠনটির কার্যক্রম।

তবে সংগঠনের কিছু নেতা নেতৃত্ব পাওয়ার আশায় কোনোরকম ছাত্রত্ব টিকিয়ে রেখেছেন। মাঝেমধ্যে ক্যাম্পাসের বাইরে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি পালন করতে দেখা যায় তাদের। ছাত্রলীগের ভয়ে ক্যাম্পাসেও তাদের আনাগোনা লক্ষ্য করা যায় না। কেউ কেউ মাঝেমধ্যে একাডেমিক কাজে ক্যাম্পাসে আসলেও ছাত্রলীগের ভয়ে দ্রুত প্রস্তান করেন। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ চান বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মীরা।

তাদের দাবি, অতি দ্রুত ইবি ছাত্রদলের নতুন কমিটি দেয়া হোক। এতে করে তারা নতুন করে উদ্যমী হয়ে সাংগঠনিক কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেন, সংগঠনকে গতিশীল রাখতে পারবেন। সর্বোপরি শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ে কথা বলতে পারবেন তারা।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, সর্বশেষ ২০১০ সালের ১৭ মার্চ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের কমিটি অনুমোদন দেয় তৎকালীন কেন্দ্রীয় কমিটি। কমিটিতে আইন বিভাগের ২০০৩-০৪ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র ওমর ফারুককে সভাপতি এবং ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ২০০৫-০৬ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র রাশেদুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করে দুই বছরের জন্য সাত সদস্যবিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়। কমিটি ঘোষণার ছয় মাসের মধ্যে ১১১ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি করে কেন্দ্রের অনুমোদন নেন তারা। তবে আগামী ১৮ মার্চ ২ বছরের কমিটির মেয়াদ হবে ১১ বছর।

ছাত্রদলের কিছু সক্রিয় কর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দীর্ঘ ১১ বছর ধরে বুড়ো কমিটি থাকায় এবং নতুন কমিটি না আসায় শাখাটি অচল হয়ে পড়েছে। সক্রিয় কর্মীরা উৎসাহ হারিয়ে ফেলেছেন। ক্যাম্পাস ছাত্রদলের এই পরিণতির জন্য বর্তমান কমিটিকেই দায়ী করেছেন তারা।

ইবি ছাত্রদলের নতুন কমিটিতে পদপ্রত্যাশী মাসুদ রুমি মিথুন জাগো নিউজকে বলেন, ‘নতুন কমিটি অনুমোদনের জন্য কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে অনেকবার কথা হয়েছে। কেন্দ্র থেকে ইতিবাচক সাড়াও মিলছে। আশা করছি, কেন্দ্র দ্রুত নতুন কমিটি দেবে।’

তিনি বলেন, কমিটি আসলে সব ব্যর্থতা পেছনে ফেলে নতুন উদ্যমে নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সংগঠনের গতিশীলতা আনার চেষ্টা করব।

আরেক পদপ্রার্থী আবু দাউদ বলেন, ‘দীর্ঘদিন কমিটি থাকায় নেতাকর্মীরা অনেকটা ঝিমিয়ে পড়েছেন। নতুন কমিটির ব্যাপারে কেন্দ্র থেকে সবুজ সংকেত পাচ্ছি। আশা করি, খুব অল্প সময়ের মধ্যে কেন্দ্র কমিটি দেবে।’

ইবি ছাত্রদলের সভাপতি ওমর ফারুক জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমরা কেন্দ্রে সবকিছু জমা দিয়েছি। কেন্দ্রের কাছে বারবার নতুন কমিটি দেয়ার অনুরোধ করেছি। তারা বিষয়টি আমলে নিয়ে কমিটির বিষয়ে চিন্তাভাবনা করছেন। আশা করছি, ১৭ মার্চের আগেই ইবিতে নতুন কমিটি আসবে।’

এ বিষয়ে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন জাগো নিউজকে বলেন, ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিটির চূড়ান্ত খসড়া করা হয়েছে। আগামী ১৭ মার্চের আগেই ইবিতে ছাত্রদলের নতুন কমিটি দেয়া হবে।’

error: Content is protected !!