জাহিদ হাসান ॥

কুষ্টিয়ার মিরপুরে রাইস ট্রান্সপ্লান্টার যন্ত্রের সাহায্যে ধানের চারা রোপন কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে।

বুধবার (২৭ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় মিরপুর উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্যোগে আমলা ভিত্তিবীজ আলু উৎপাদন খামারে এ উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

কৃষির আধুনিকায়নে ২০২০-২০২১ অর্থবছরে কৃষি প্রণোদনা কর্মসূচীর আওতায় মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের রবি মৌসুমে বোরো হাইব্রিড ধানের সমলয়ে চাষাবাদ (Synchronize Cultivation) ব্লক প্রদর্শনীর অংশ হিসাবে এ রাইস ট্রান্সপ্লান্টার যন্ত্রের সাহায্যে ধানের চারা রোপন কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করা হয়।

এসময় প্রধান অতিথি হিসাবে এ কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব সরকার।

এ সরকার কৃষিকে আরো উন্নত করতে কাজ করে যাচ্ছেন। আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতি ব্যবহারের মাধ্যমে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি করছে।” তিনি আরো বলেন, “কৃষকদের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকার সহজ শর্তে ঋণ এবং প্রনোদনার মাধ্যমে কৃষকদের সহায়তা করছেন। কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষে সরকার বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নিয়েছেন।”

অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ শ্যামল কুমার বিশ্বাসের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপপরিচালক (শস্য) রঞ্জন কুমার প্রামানিক, বিএডিসি’র উপপরিচালক (খামার) মোর্শেদুুল ইসলাম, মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ্বাস, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সাদত সজীব, মিরপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মর্জিনা খাতুন, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ বিষ্ণুপদ সাহা, ভেড়ামারা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইখুল ইসলাম, মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মস্তফা, আমলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম মালিথা, মিরপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ইমরান হোসেন, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা শুকেশ রঞ্জন পাল, সাদ্দাম হোসেন প্রমখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্যে মিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রমেশ চন্দ্র ঘোষ বলেন, “কৃষিকে আধুনিক এবং লাভজনক করতে যান্ত্রিকীকরণের কোন বিকল্প নেই। কৃষিকাজে যন্ত্রের ব্যবহারের ফলে একদিকে যেমন সময়ের অপচয় রোধ হয় তেমনি উৎপাদন খরচ কম হয়। এছাড়া বর্তমান সরকার কৃষিতে যান্ত্রিকীকরণের উপরে গুরুত্ব দিয়েছেন। কৃষি যন্ত্রপাতির উপরে ভুর্ত্তকী দিচ্ছেন।” তিনি আরো বলেন, “আমরা মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের এই মাঠে ১৫০ বিঘা জমিতে একই দিনে ট্রে-তে চারা উৎপাদন, রাইস ট্রান্সপ্লান্টার যন্ত্রের সাহায্যে ধানের চারা রোপন, যন্ত্রের সাহায্যে ধানের আগাছা নিড়ানী, একই সময়ে জমির পরিচর্যাসহ সকল কাজ যন্ত্রের মাধ্যমে এবং ধান কর্তন, ঝাড়াই এবং মাড়াই এ পেশি শক্তির পরিবর্তে যান্ত্রিক শক্তি ব্যবহার করবো। এতে কৃষকরা যান্ত্রিক শক্তি ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ হবে এবং উৎপাদন খরচ কমিয়ে উৎপাদন বৃদ্ধি করা হবে।”

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এলাকার প্রায় দেড় শতাধিক কৃষক ও কৃষাণী উপস্থিত ছিলেন।

error: Content is protected !!