বিশেষ প্রতিনিধি
সুন্দর মনোরম পরিবেশের একটি গ্রামে স্কুল কলেজ, মসজিদ মাদ্রাসাসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপুর্ন স্থাপনা রয়েছে নড়াইলের কালীয়া উপজেলার পাটনা ও দেবীপুর। একটি ভমিদস্যু গ্রুপ ওই এলাকার ফসলী জমি দখল করে পরিবেশ দুষন কারক ইটভাটা তৈরী করতে মরিয়া একটি প্রভাবশালী মহল। এতে ওই এলাকার পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষাসহ নারী-পুরুষ ও যুব সমাজকে রক্ষায় এবং ফসলী জমি বাচাঁনোসহ ইটবাটা বন্ধে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দিয়েছে এলাকাবাসী।
এলাকাবাসীর অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলাস্থ নড়াগাতী থানার পাটনা ও দেবীপুর গ্রামের নবগঙ্গা নদীর জেগে উঠা চরে মালিকানা জমিতে অবৈধ ভাবে লালন নামের এক প্রভাবশালী ইটের ভাটা তৈরীর পরিকল্পনা করছে। এ ইটভাটা তৈরী হলে এখানকার পাটনা একাডেমী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের, পাটনা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাটনা মাদ্রাসা ও এতিম খানার ছাত্র-ছাত্রী, পাটনার দুইটি মসজিদও রয়েছে একই স্থানে। ইটভাটা তৈরী হলে এখানকার বসবাসকারীদের ক্ষতিসহ এলাকাবাসীর স্বাস্থ্য ঝুঁকিপূর্ণ ও নানা প্রকার রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত হওয়ার আসংঙ্কা করছে একানকার সচেতন মহল। ওই একই ব্যাক্তি গত এক বছর পূর্বে এই অবৈধ ইট ভাটার তৈরী করার কারণে অনেক ছাত্র-ছাত্রী সহ এলাকায় বসবাসকারী লোকজনের শ্বাস কষ্ট সহ বিভিন্ন রকমের রোগে আক্রান্ত হয়েছে এবং পরিবেশ দূষন হওয়ায় এলাকাবাসীর অনেক সমস্যার সম্মুখিন হতে হচ্ছে। ওই ব্যাক্তি জনবাসতী এলাকায় এসে পুনরায় আরো একটি অবৈধ ইটভাটা তৈরীর পরিকল্পনা করছে। প্রভাবশালী লালন তার অবৈধ এ ইট ভাটা গড়ে তোলায় সরকারের কোন নীতিমালা বা বৈধ কোন লাইসেন্স নিচ্ছে না বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। অবৈধ এ ইটভাটা তৈরী করার জন্য যাদের নিকট থেকে জমি লীজ নিয়ে ভাটা তৈরী করেছে তাদেরও জানা নেই জমি খনন করলে ভবিষ্যতে কত বড় ক্ষতির সম্মোখিন হতে হবে এলাকাবাসীর। এর আগে ইটভাটা তৈরী করে জমির মাটি কাটার কারনে পাশের ফসলী জমি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। যার ফলে আশপাশের ফসলী জমির মালিক পক্ষ প্রতি নিয়ত ক্ষতি গ্রস্ত হচ্ছে। ইতি পুর্বে অবৈধ এ ইট ভাটার ইট বহন করা গাড়ির সাথে চাপা পড়ে একজন পথচারী নিহত হয়েছে। এছাড়াও ইটভাটার মালিক থেকে শুরু করে কর্মকর্তা কামচারীদের দুর্ব্যাবহারে এলাবাসী অতিষ্ট হয়ে উঠছে। প্রতিনিয়ত এলাকার নিরিহ মানুষদের সাথে অহেতুক গালমন্দসহ ফ্যাসনা-ফাসাদ লেগেই রয়েছে এ অবৈধ ইটভাটা তৈরী হওয়ার কারনে। এলাকাবাসীর দাবী আর যেন কোন অবৈধ ইটভাটা তৈরী না হয়, সেজন্য সরকারের সকলের কাছে জোর দাবী এলাকাবাসীর।
এলাকার ভুক্তভোগী লিপি বেগম বলেন, লালন নামের এক প্রভাশালী অবৈধ ভাবে ইটভাটা তৈরীর করা ও গর্ত করে মাটি কাটার ফলে বাড়ির ও বসতী ঘর ভেঙ্গে যাওয়া পথে। ফসলী জমি নষ্ট হচ্ছে এবং বসত ঘরে বালি উড়ে এসে গাছ পালা, ঘরবাড়ি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। উশৃঙ্খল ভাটা শ্রমিকগন খারাপ আচার আচারনের কারণে বাড়ীতে ছেলে-মেয়ে নিয়ে বসবাস অসম্ভব হয়ে পরছে। এব্যাপারে আমিও জেলা প্রমাসকের কাছে অভিযোগ দিয়েছি বলে জানায় লিপি বেগম।
দি-পাটনা একাডেমী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জয়ন্ত কুমার দাশ বলেন, এ এলাকায় স্কুল সংলগ্ন ইটভাটা তৈরী করার ফলে স্কুলে ছাত্র/ছাত্রীদের চলাচলে সমস্যা হচ্ছে। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানের কালো ধোয়া ও বালু উড়ার ফলে শিশুরা শাস কষ্টসহ নানা রোগে ভুগছে।
নরাগাতী কালীয়া থানার অফিসার ইনচার্জ রোকসানা বেগম বলেন, এলাকার পরিবেশ ও বসবাসকারী মানুষের ক্ষতি করে কোন প্রতিষ্ঠান তৈরী করা হলে তাতে সরকার কোন অনুমতি দিবেনা। পাটনা ও দেবীপুর থেকে ইটভাটা তৈরী করে এলাকার মানুষ ও যুব সমাজের ক্ষতিসাধন হচ্ছে এমন একটি অভিযোগ পেয়েছি। এর বিরুদ্ধে ব্যাবস্তা নেয়ার জন্য প্রস্তুতি চলছে বলেও জানায় ওসি রোকসানা বেগম।
কালীয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল হাসান বলেন, পাটনা ও দেবীপুর এলাকায় অবৈধ ইটভাটা তৈরী করা নিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছে এলাকাবাসী। এটি আমার নজরে রয়েছে, তবে এলাকার যুব সমাজ ও মানুষের ক্ষতিকারক অবৈধ ভাবে কোন প্রতিষ্ঠান তৈরী করতে না পারে সে ব্যাপারে আমরা কাজ করে যাচ্ছি বলে জানায় নির্বাহী কর্মকর্তা।

error: Content is protected !!