মোংলা প্রতিনিধি : খুলনায় বিএনপির সমাবেশকে ঘিরে মোংলা-রুপসা-খুলনা মহাসড়কে বাস চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ রয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে শনিবার সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত বাস মালিক সমিতি এ পরিবহণ ধর্মঘটের ডাক দেয়। এ পরিবহণ ধর্মঘটে চরম ভোগান্তীতে পড়েছেন এ রুটের যাত্রী সাধারণ। সকাল থেকে মোংলা বাস ষ্টান্ডে শতাধিক যাত্রী দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাওয়ার জন্য ভিড় জমায় কিন্ত দুরপাল্লার বাস ভিশেষ করে মোংলা-খুলানা ও যশোর লাইনে বাস চলাচলা সম্পুর্ণ বন্ধ থাকায় চরম ভোগন্তীতে পড়ে এসকল যাত্রীরা।

সকালে যশোরের উদ্দোশ্যে যাওয়ার জন্য বাস ষ্টান্ড থেকে ফিড়ে আসা যাত্রী আঃ জলিল মাতুব্বর বলেন, আমি একজন পোল্টি ফার্ম ব্যাবসায়ী। প্রায় এক মাস আগে পোল্টি মুরগীর বাচ্চা আনার জন্য যশোরে যাওয়ার আজ ২৭ ফেব্রয়ারী তারিখ নির্ধারিত ছিল। কিন্ত বাস চলাচল বন্ধ থাকার কারনে যাওয়া হয়নী আর মুরগীর বাচ্চাও নিয়ে আসা সম্ভব হলোনা। যার ফলে আগামী এক মাস পর ছাড়া বাচ্চা পাওয়া যাবে না তাই ব্যাবসায় লোকসানে পরতে হবে।

এছাড়াও, বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা যাত্রীরা বলছেন, বাস চলাচল বন্ধ থাকায় আমাদের গন্তব্যে যেতে ভোগান্তীতে পড়তে হচ্ছে। রোগী নিয়েও ভোগান্তীতে স্বজনেরা। এদিকে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় মাহেন্দ্র, অটো ও টমটম চালকেরা অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছেন বলে অভিযোগ যাত্রীদের।

মোংলা-খুলনা বিভাগীয় বাস মালিক সমিতির মোংলা প্রান্তের প্রতিনিধি কাউন্সিলর জি এম আল-আমিন বলেন, শুক্রবার রাত থেকে বাস চালক ও শ্রমিকরা সম্মিলিত ভাবে হঠাৎ বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়। এব্যাপারে চালক ও মালিক পক্ষ বৈঠকও হয়েছে, তবে আজ শনিবার রাতে বিভাগীয় বাস মালিক, চালক ও শ্রমিকদের সাথে পুনরায় বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। রাতেই দ্রুত সিদ্ধান্ত হবে মোংলা-খুলনা বাস চলাচলের ব্যাপারে। তবে কি কারনে শ্রমিকরা বাস চলাচল বন্ধ রেখেছে সে ব্যাপারে কিছুই জানেন না বলে জানায় বাস মালিক সমিতির প্রতিনিধি।

এদিকে, নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েক বাস চালক (ড্রাইভার) বলছেন, খুলনায় বিভাগীয় বিএনপির সমাবেশ রয়েছে তাই মালিক সমিতির নেতারা তাদেরকে বাস চলাচল বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।

শৃংঙ্খলা রক্ষার্থে শনিবার সকাল থেকে মোংলা বাস স্ট্যান্ডে পুলিশ মোতায়েন দেখা গেছে। এব্যাপারে বাস ষ্টান্ডে দায়ীত্বে থাকা মোংলা থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক বিশ্বজিৎ মুখার্জী বলেন, কি কারনে মোংলা-খুলনা বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে সে ব্যাপারে কিছুই জানেনা তিনি। তবে ধারনা করছে, শ্রমিক-মালিকদের মধ্যে বেতন বৃদ্ধি বা অন্য কোন বিষয় নিয়ে দন্ধের কারনেই এ রুটে বাস চলাচল বন্ধ রেখেছে শ্রমিকরা। তবে বাসষ্টান্ডে অপ্রতিকর কোন ঘটনা না ঘটে সে ব্যাপারে কঠোর নজরদারি রয়েছে পুলিশের। এছাড়াও মোংলা-খুলনা রুটে বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও ঢাকাসহ অন্যান্য রুটে বাস চলাচল সাভাবিক রয়েছে বলে জানায় পুলিশের এ কর্মকর্তা।

error: Content is protected !!