মোংলা প্রতিনিধি : পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রনালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার বলেন, প্রশাসনের পাহারা ও বহু নজরদারীর পরেও সুন্দরবনের নদী ও খালে যে ভাবে বিষ দিয়ে মাছ নিধন করা হচ্ছে, তাতে এক সময় আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম যারা আসবে তারা একদিন মাছ চিনবে ছবি দেখে। বুঝবে এরকম একটি জলজ প্রানী ছিল যা পানিতে বসবাস করতো এবং মানুষের সুষম খাদ্য হিবেসে চাহিদা পুরন করতো। তাই আমাদের নিজেদের ও আগামী প্রজন্মকে বাচতে হলে সুন্দরবনকে বাচাতো হবে। তাই বভিষ্যাত প্রজন্মের কথা চিন্তা করে সুন্দরবন ও বনের জীব বৈচিত্র সম্পর্কে ধারনা এবং বই পুস্তাকের মাধ্যমে জ্ঞান অর্জন করাতে হবে। ২২ ফেব্রুয়ারী সোমবার সকাল ১১টায় স্থানীয় জয়মনি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে এক আলোচনা সভা ও সুন্দরবন সহায়ক শিক্ষা উপকরণ বিতরনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপমন্ত্রী এ কথা বলেন।

খুলনা অঞ্চলের বন সংরক্ষক মঈনুউদ্দিন খাঁন’র সভাপতিত্বে মোংলা উপজেলার চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ বেলায়েত হোসেন, খুলনা বিশ্ব বিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. সরদার শফিকুল ইসলাম, চাদঁপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা এনামুল হক, বেডস’র চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান মুকুল, প্রধান নির্বাহী মাকছুদুর রহমান,কর্মসুচি স¤œœয়কারী সৌমিত্র চক্রবর্তী, প্রকল্প ব্যাবস্থাপক মোঃ শাহনেওয়াজ হোসেন পার্থ, এইচ আর আলামিন গাজী,উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মোঃ সবুজ হাওলাদার, জয়মনি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম রিপন, সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মাহবুব হোসেন, চাদঁপাই ষ্টেশন কর্মকর্তা ওবায়দুর রহমানসহ বিভিন্ন স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক শিক্ষীকা ও স্থানীয় দলীয় নেতাকর্মীরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

জার্মান ফেডারেল মিনিস্ট্রি ফর ইকোনমিক কো-অপারেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট’র সহয়তায় বাংলাদেশ বন বিভাগ’র সহযোগীতায় জিআইজেড এবং বেডস্ (বাংলাদেশ এনভায়রনমেন্ট এ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি) এর যৌথ উদ্যোগে সুন্দরবন ম্যানেজমেন্ট প্রজেক্ট (এস এম পি-২) এর আওতায় এনভায়রনমেন্টাল এডুকেশন এ্যান্ড এ্যাওয়ারনেস ফর চিলড্রেন এ্যান্ড ইয়ুথ এ্যারাউন্ড দি সুন্দরবন রিজার্ভ ফরেস্ট ইন টাইমস অফ কোভিড-১৯ প্রকল্পের মাধ্যমে সুন্দরবন সংলগ্ন ৫ম শ্রেনী ও ৮ম শ্রেণীর ১৫০০ ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে সুন্দরবন সহায়ক শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়।

error: Content is protected !!