রবিবার্তা ডেস্ক : কুষ্টিয়ায় গ্রামবাংলার বিলুপ্তপ্রায় ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার দুপুরে মিপুরর উপজেলার বলিদাপাড়া-বাড়–ইপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে স্থানীয় বারাতালা স্পোর্টিং ক্লাবের উদ্যোগে আয়োজিত দিনব্যাপী উৎসবমুখর লাঠিখেলা দেখতে ভীড় করেছে আশপাশের গ্রাম থেকে আগত নারী পুরুষসহ সকল বয়সীরা। এই আয়োজনের আর্থিক পৃষ্ঠপোষক বে-সরকারী সংস্থা দিশা’র নির্বাহী পরিচালক রবিউল ইসলাম খেলাটির আনুষ্ঠানি উদ্বোধন করেন।

মূলত: কৃষি প্রধান এলাকা হওয়ায় ধান কাটা শেষ করে গ্রামীন উৎসবের আয়োজন হিসেবে দীর্ঘদিন ধরেই এজাতীয় বার্ষিক অনুষ্ঠান চলে আসছে। তারই ধারাবাহিকাতায় আজকে এই লাঠিখেলার আয়োজন করা হয়েছে বলে জানান স্থানীয় আয়োজকরা।

সরেজমিন দেখা যায়, বাদ্যের তালে তালে ঘুরছে লাঠি। লাঠিয়ালদের কেরামতিও নজর কাড়া। শক্ত হাতে প্রতিপক্ষকে পরাস্ত করতে নানা কৌশলের কেরামতি চালিয়ে যাচ্ছেন লাঠিয়াল। তবে খেলা চুড়ান্তে জয়-পরাজয়ই তাদের কাছে মুখ্য নয় বরং দর্শক নন্দিত বিনোদনই মূল লক্ষ্য। লাঠিয়ালদের অপূর্ব কৌশল দেখে মুগ্ধ দর্শকরা। নিয়মিত এমন আয়োজন দেখতে চান তারা।

রবিউল ইসলাম বলেন, ঐতিবাহী লাঠিখেলা গ্রাামাঞ্চলের মানুষের নির্মল আনন্দের খোরাক যোগায়। এখেলাটি কেবল লাঠিখেলা নয় বরং নানা রকম শারীরিক কসরতও বটে। বাঙালি জীবনের ঐতিহ্যবাহী যেসব সংস্কৃতি ও গ্রামীণ খেলাধুলা কালের গর্ভে হারিয়ে যেতে বসেছে, তার মধ্যে অন্যতম একটি লাঠিখেলা। প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে খেলাটিকে রক্ষা করতে সবাইকে এগিয়ে আসা দরকার।

আয়োজক বারাতালা স্পোর্টিং ক্লাবের সভাপতি তুফান আলী বলেন, গ্রামবাংলার ইতিহাস-ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে বাঙালির রক্তে মিশে এই লাঠিখেলা, যা কালের বিবর্তনে এখন প্রায় বিলুপ্তির পথে। আমরা আমাদের এই স্পোর্টিং ক্লাবের উদ্যোগে প্রতিবছর লাঠিখেলার আয়োজন করে খেলাটি টিকিয়ে রাখতে চাই।

এই খেলায় কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী লাঠিয়াল দল হিসেবে স্থানীয় হাজরাহাটি ও কবরবাড়ীয়া দল অংশ নেয়।

error: Content is protected !!