আবুল হোসেন,রাজবাড়ি প্রতিনিধি : রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ডের সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল গনি মন্ডলকে গুলি করে হত্যায় তার বড় ছেলে মো. আলমগীর হোসেন মন্ডল বাদী হয়ে শনিবার (৩ এপ্রিল) ৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরো ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে।

মামলার এজহার ভুক্ত আসামীরা হলেন- দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ওমর আলী মোল্লার পাড়া এলাকার কাশেম মন্ডলের ছেলে মো. রাজীব মন্ডল (৩২), ২নং বেপারী পাড়া এলাকার কাশেম ফকিরের ছেলে কাউছার ফকির (২৯), ওমর আলী মোল্লার পাড়া এলাকার কাশেম মন্ডলের ছেলে রহমান মন্ডল (৩৩), লোকমান চেয়ারম্যান পাড়া এলাকার আবুল ডাক্তারের ছেলে খাইরুল (২৮) ও গোয়ালন্দ পৌরসভা ১নং ওয়ার্ডের কছিমদ্দিন সরদার পাড়া রেলগেট এলাকার মাইনদ্দীনের ছেলে আলামিন (২৮)।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার ( ৩১ মার্চ) দিবাগত রাত ১০টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের পূর্বপাশে সোবাহান মোল্লার চায়ের দোকান থেকে বাড়ি ফিরছিলেন ইউপি সদস্য ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গনি মন্ডল। এসময় পূর্ব পরিকল্পিতভাবে মোটর সাইকেল যোগে একদল দুর্বৃত্তরা তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে পালিয়ে যায়। সে সময় তার ও তার স্বজনদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে স্থানান্তর করে । সেখানে তার অবস্থা আরো অবনতি হলে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১ টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান।

এ বিষয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, বাদীর দায়েরকৃত এজাহারের ভিত্তিতে এ হত্যা মামলা রুজু করা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতার ও হত্যার রহস্য উদঘাটনে পুলিশ মাঠে নেমেছে।তবে চেয়ারম্যান আব্দুর রহমানের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার সাথে এ হত্যাকান্ডের কোন যোগসূত্র আছে কিনা সেটাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

 

error: Content is protected !!