মোক্তার হোসেন, পাংশা (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি ॥ রাজবাড়ী জেলার পাংশা পৌরশহরের কাজী আব্দুল মাজেদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ সরদার আব্দুস সোবহান (৮৬) গত শনিবার ১৩ মার্চ ভোর ৫টার সময় বার্ধক্যজনিত কারণে মাগুড়াডাঙ্গী নিজ গ্রামের বাড়ীতে ইন্তেকাল করেন। (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। সরদার আব্দুস সোবহান ১৯৯২ সালে কাজী আব্দুল মাজেদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে অবসরগ্রহণ করেন। বেশ কিছুদিন যাবত তিনি বার্ধক্যজনিত রোগে অসুস্থ ছিলেন। শিক্ষকতা ও সুস্থকালীন সময়ে তিনি বিভিন্ন মসজিদে পবিত্র কোরআনের উপর তাফসীর পেশ করতেন। তিনি সাহিত্যচর্চা করতেন। কোরআনের দর্পন নামে তার একটি কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়। এয়াকুব আলী চৌধুরীর জীবনীসহ তার একাধিক গ্রন্থ অপ্রকাশিত রয়েছে।

শনিবার যোহর নামাজের পর পাংশা পৌরসভা মাঠে জানাজার নামাজ শেষে পাংশা পৌরসভার কেন্দ্রীয় গোরস্থানে মরহুমের দাফন সম্পন্ন হয়। জানাজার নামাজে ইমামতি করেন মরহুমের বড় জামাতা আবুল খায়ের মৃধা। সরদার আব্দুস সোবহান মাস্টার একজন গুণী মানুষ ছিলেন। তিনি প্রবীণ ভাষা সৈনিক অধ্যাপক আব্দুল গফুরের ভগ্নিপতি। তার মৃত্যুতে জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, সাংবাদিক, ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিগণ গভীর শোক এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করেছেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৩ পুত্র ও ৩ কন্যা সন্তানসহ বহু আত্মীয়-স্বজন, শুভাকাঙ্খী ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

আগামী মঙ্গলবার যোহর নামাজের পর মরহুমের মাগুড়াডাঙ্গী গ্রামের বাড়ীতে তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনায় কুলখানী অনুষ্ঠিত হবে।

পরিবারের পক্ষ থেকে মরহুমের প্রথম পুত্র পাংশা পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের সাবেক কমিশনার খালেদ ফজলুল্লাহ, দ্বিতীয় পুত্র পাংশা মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক খালেদ জগলুল পাশা ও তৃতীয় পুত্র পাংশা সরকারী কলেজের শিক্ষার্থী খালেদ বজলুল পাশা পিতার বিদেহী আত্মার মাগফিরাতের জন্য দোয়া কামনা করেছেন।

 

 

 

error: Content is protected !!