নিজস্ব প্রতিবেদক : হেফাজতের কোন কর্মসুচির সাথে বিএনপির কোন সম্পর্ক না থাকার পরও হেফাজত সংস্লিষ্ট মামলায় বিএনপি নেতাকর্মীদের নাম দিয়ে তাদের গ্রেফতার করে হয়রানি করা হচ্ছে, বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্যের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মাহাবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, ২৬, ২৭ এবং ২৮ তারিখে হেফাজতের তান্ডবে সরাসরি ভাবে বিএনপি’র মদদ ছিলো। তারা (হেফাজত) কর্মসূচির নামে কয়েকদিন ধরে যে উস্কানি মুলক কর্মকান্ড করছিলো, সেখানে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফকরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব তাদের কর্মসুচিকে সমর্থন জানিয়ে একাধিকবার উস্কানি মুলক বক্তব্য দিয়েছেন। এই তান্ডবের পরে যে মামলা হয়েছে, সেই মামলায় ভিডিও ফুটেজ দেখে যারা এই সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিলো তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এর বাইরে কাউকে হয়রানি করা হচ্ছে না। এখন বিএনপি যদি এই সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকে, সেটা হেফাজত বা জামায়াত ইসলামের নামেই হোক তাহলে তো তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবেই। ওই সময় বিএনপি’র অনেক পদধারী নেতাকর্মীদের ও ওই হামলায় অংশ নিতে দেখা গেছে। আজ শনিবার সকালে কুষ্টিয়ার পিটিআই রোডের নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে হানিফ এসব কথা বলেন। হানিফ আরো বলেন, ২৬ তারিখে বায়তুল মোকারমের ছোট বিষয়কে ইস্যু করে বাংলাদেশকে একটি অস্থিশীল রাষ্ট্র হিসেবে বহিঃবিশে^র কাছে প্রচার করার জন্য পরিকল্পিত ভাবে তারা রাষ্ট্রিয় সম্পত্তি ধ্বংস করেছে। যারা রাষ্ট্রকে নিজের বলে মনে করতে পারে না তারাই এই ভাবে রাষ্ট্রের সম্পত্তি ধ্বংস করতে পারে। এ সময় কুষ্টিয়া জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পওে হানিফ ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে মেহেপুরের মুজিবনগরের উদ্দেশ্যে রওনা দেন।

error: Content is protected !!