মোক্তার হোসেন, পাংশা (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি ঃ নিখোঁজ হওয়ার ৫দিন পর সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর সন্ধান পেয়ে কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর উপজেলার কুর্শা ইউপির মাজিরহাট গ্রামের একটি হাফিজিয়া মাদ্রাসা থেকে পাংশার পুঁইজোর হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র জুবায়েরকে (১৪) উদ্ধার করেছে তার পরিবার। সোমবার দুপুরে ওই মাদ্রাসা থেকে উদ্ধারের পর সন্ধ্যায় পাংশার পাট্টা ইউপির খামারডাঙ্গী নিজ বাড়িতে পৌঁছেন তারা।

জুবায়ের আহমেদের বড় ভাই আসাদ জানান, সোমবার সকালে মাজিরহাট এলাকার একটি হাফিজিয়া মাদ্রাসা থেকে মোবাইল ফোন করে সেখানে জুবায়েরের আবস্থান নিশ্চিত করেন ওই মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ। ওই মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ উপযুক্ত প্রমাণ সাপেক্ষে তাকে সেখান থেকে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেন। সে মোতাবেক পিতা আনিসুর রহমান, মাতা ঝর্না বেগমসহ ঘনিষ্ঠ কয়েকজনকে সাথে নিয়ে সোমবার দুপুরে মাজিরহাট হাফিজিয়া মাদ্রাসায় পৌছেন আসাদ। সেখানে কথাবর্তা বলে জুবায়েরকে সাথে নিয়ে খামারডাঙ্গী গ্রামের বাড়িতে ফেরেন তারা। জুবায়ের সুস্থ্য ও ভালো আছে উল্লেখ করে জুবায়েরের বড় ভাই আসাদ আরও বলেন, গত ১৫ সেপ্টেম্বর পুঁইজোর মাদ্রাসা থেকে জুবায়ের পালিয়ে ট্রেন যোগে পোড়াদহ রেলওয়ে জংশন স্টেশনে নামে। স্টেশনে রাতে জনৈক ব্যক্তির সাথে পরিচয় হলে মানবিক কারণে ওই ব্যক্তি জুবায়েরকে মাজিরহাট নিজ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যায়। হাফিজিয়া মাদ্রাসায় লেখাপড়ার কথা জেনে ওই ব্যক্তি জুবায়েরকে ভর্তি করতে সেখানকার একটি মাদ্রাসায় নিয়ে যান। মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ তার পালিয়ে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হলে জুবায়েরের নিকট থেকে পরিবারের মোবাইল ফোন নম্বর নিয়ে জুবায়েরের অবস্থান সম্পর্কে পরিবারকে খবর দেন। পুঁইজোর সিদ্দিকীয়া ফাযিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব সাঈদ আহমেদও জুবায়ের’র বাড়ি ফেরার তথ্য নিশ্চিত করেন।

প্রসঙ্গতঃ গত ১৫ সেপ্টেম্বর যোহরের নামাজের পর পুঁইজোর হাফিজিয়া মাদ্রাসা থেকে নিখোঁজ হয় জুবায়ের। নিখোঁজের ঘটনায় তার মা ঝর্না বেগম গত ১৮ সেপ্টেম্বর পাংশা মডেল থানায় জিডি করেন। জিডি নং ৭৩৭।

Leave a Reply

Your email address will not be published.