নিজস্ব প্রতিবেদক: কুষ্টিয়া সদর উপজেলার অন্তর্গত ভাদালিয়া দরবেশপুর গ্রামে পূর্ব বিরোধ ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের গুলিতে সিটি ব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তা রাজু আহম্মেদকে (৩৫) হত্যার প্রতিবাদ ও সুষ্ঠু বিচারের দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর আগে হত্যাকান্ডে ঘটনার প্রতিবাদে কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের হলরুমে নিহতের পরিবারের পক্ষে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিহতের মা কমলো খাতুন। পরে প্রেস ক্লাব সংলগ্ন শহরের প্রধান সড়কে শতাধিক নারী-পুরুষ ঘন্ট্যাবাপী মানববন্ধন করেন।
নিহতের পরিবারের বাদী, পূর্ব পরিকল্পনা মতে ২৩ সেপ্টেম্বর দিবাগত গভীর রাতে প্রতিপক্ষ বক্কার, দাউদ ও আরাফুলের নেতৃত্বে সন্ত্রাসী দল আগ্নেয়াস্ত্রসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা রাজু আহম্মেদের বাড়িতে আকস্মিক ঘেরাও ও আক্রমন করে। পরবর্তীতে বাড়িতে ঘুমন্ত রাজুকে ঘুম থেকে ডেকে উঠিয়ে তার উপর উপর্যুপরি গুলি চালায়। এতে বুকে,পিঠে ও মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। এঘটনায় নিহতের ভাই শাহীন আলম বাদী হয়ে ২৫ সেপ্টেম্বর এজাহার নামীয় ৩১ জনের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা করেন। ধারা ১৪৩/ ৪৪৭/ ৪৪৮/ ৩২৩/ ৩২৪/ ৩২৬/ ৩০৭/ ৩০২/ ১৪৪/ ৪০৬/ ১৪৮/ ৩ প্যানাল কোড। নিহত রাজুর পরিবার দরবেশ এলাকার বক্কার গ্রুপের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে মামুন গ্রুপের সাথে অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় প্রতিহিংসাবশতঃ প্রতিপক্ষের লোকজন পৈশাচিক এ হত্যাকান্ডটি সংঘটিত করে। হত্যকান্ডের সাথে জড়িতরা সরকার দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থক হওয়ায় প্রভাব খাটিয়ে মামলাটি ভিন্নখাতে নেওয়ার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এছাড়া লাশের সুরতহাল অনুযায়ী ময়না তদন্তের প্রকৃত প্রতিবেদন আড়াল করতে আসামীরা মরিয়া হয়ে উঠেছে বলে নিহতের পরিবার অভিযোগ করেন। হত্যাকন্ডটি সংঘটিতের আগে আসামীদের ফাঁকা গুলি চালিয়ে এলাকায় চরম আতংক ও ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। ঘটনার সময় দহকুলা ক্যাম্পের পুলিশ নীরব ভুমিকায় ছিল বলে নিহতের ভাই শাহীন আলম অভিযোগ করেন। এসময় ঘটনার বিবরণ দিতে য়েয়ে নিহত রাজুর বৃদ্ধ মা কমেলা খাতুন বার বার কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন ও বিলাপ করতে থাকেন। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন নিহত রাজুর বৃদ্ধ পিতা মুন্তুাজ আলী, ছোট ভাই শাহীন আলম, বোন নাসরিন প্রমুখ। বক্তারা সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সকল আসামীকে দ্রুত গ্রেফতারসহ আইনের আওতায় দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন। এছাড়া এরআগে হত্যাকান্ডে প্রতিবাদে এলাকাবাসী লাশ নিয়ে মিছিল করে। উল্লেখ্য, ২৩ সেপ্টেম্বর রাত ১ টার দিকে কুষ্টিয়ার দরবেশ পুর গ্রামের বাসিন্দা সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা ও বর্তমানে একটি ফুড বেভারেজ কোম্পানীতে কর্মকর্তা পদে কর্মরত রাজু আহম্মেদ সন্ত্রাসীদের গুলিত নির্মমভাবে নিহত হন।
এ বিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাব্বিরুল আলম জানান, বিবদমান দুই গ্রুপের দ্বন্দ্বের জের ধরেই হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে। কেউ আইনের উর্ধ্বে নয়। হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত দের গ্রেফতার করে আইনের কাছে সোপর্দ করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *