কুমারখালী প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে জেলা পরিষদের জায়গায় স্থাপনা নির্মাণকালে রাতের আঁধারে স্থাপনার একাংশ ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে কুমারখালী সরকারি কলেজের পরিসংখ্যান বিষয়ের শিক্ষক ও তার লোকজন। রোববার গভীর রাতে প্রহরা দেয়া অবস্থায় বলপ্রয়োগ করে এই ঘটনা ঘটায় বলে জনশ্রতি উঠেছে।

ভুক্তভোগী রিপন ও অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, ১৭ বছর যাবত জেলা পরিষদের জায়গা বরাদ্দ নিয়ে তিনি দোকান নির্মাণ পূর্বক ব্যবসা পরিচালনা করছেন। নতুন করে দোকান ঘরটি সংস্কার করতে গেলে কুমারখালী সরকারি কলেজের পরিসংখ্যান বিষয়ের শিক্ষক আব্দুল মজিদ বাধা সৃষ্টি করে। রোববার গভীর রাতে স্থাপনা নির্মাণের জায়গা রাতে প্রহরা দেয়া অবস্থায় শিক্ষক ও তার লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বলপ্রয়োগ করে ভাংচুর করে। তিনি আরো জানান রোববার বিকেলে মিস্ত্রি কাজ করাকালীন সময়ে মজিদের বড় ছেলে আলিফ তাদেরকে বলে আজ কাজ করো আগামীকাল এসে দেখবা সব সমান হয়ে গেছে। সোমবার সকালে কুমারখালী থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এ বিষয়ে কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুজ্জামান তালুকদার জানান, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.