নিজস্ব প্রতিবেদক : ১৮ নভেম্বর মরহুম প্রফেসর আমান উল্লাহ বিশ্বাস (১৯৫১-২০০৯) এর ১২তম মৃত্যু বার্ষিকী। ২০০৯ সালের এই দিনে মাত্র ৫৭ বছর বয়সে তিনি সবাইকে ছেড়ে অনন্তের পথে পাড়ি দেন।
আজন্ম নিরহংকারী এই মানুষটি তাঁর বর্ণাঢ্য ও কর্মময় জীবনে বিভিন্ন দায়িত্ব-কর্মে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন। শিক্ষকতা পেশায় শুরু করে শিক্ষকতা দিয়েই শেষ করেছেন তাঁর কর্মময় জীবন। সর্বশেষ তিনি কুষ্টিয়া ইসলামীয়া কলেজের জীব বিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কর্মরত ছিলেন। এর মাঝে তিনি তালবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করেছেন। শিক্ষানুরাগী এই মানুষটি দীর্ঘ দিন ধরে সততার সাথে তালবাড়ীয়া হাইস্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির দ্বায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি বিভিন্ন বেসরকারী সেচ্ছাসেবী সংস্থার সাথেও জড়িত রেখেছিলেন নিজেকে। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত থেকে জনকল্যাণে কাজ করে গেছেন আজীবন। যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে ১৯৯৯ সালে তাঁকে উদ্ভিদবিদ্যার একটি গবেষণার জন্য The Man Who’s Who of the Year নির্বাচন করা হয়।

জীবদ্দশায় তিনি জটিল কিডনী রোগে আক্রান্ত হলে ১৯৯৮ সালে ভারতের কোলকাতা থেকে তাঁর কিডনী ট্রান্সপ্লান্ট করা হয়।

তাঁর আত্মার মাগফেরাত কামনার জন্য তাঁর জন্মভূমি কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার তালবাড়ীয়া ইউনিয়নের কয়েকটি মসজিদে আজ বৃহস্পতিবার প্রতি ওয়াক্তে নামাজ বাদ দোয়া আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়াও কুষ্টিয়ার আল-আমিন এতিমখানায় আগামীকাল তাঁর আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে।

মরহুম প্রফেসর আমান উল্লাহ বিশ্বাসের আত্মার মাগফেরাতের জন্য তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে সবার কাছে দোয়া চাওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.