মোক্তার হোসেন, পাংশা (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি ॥ রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলা শিক্ষা অফিসে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার পদ এবং সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার দু’টি পদ শূন্য রয়েছে। উপজেলা পর্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ তিনজন কর্মকর্তার পদ শূন্য থাকায় দাপ্তরিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।

শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, পাংশা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ খোরশেদ আলম গত বছরের ৬ সেপ্টেম্বর পাংশায় যোগদান করেন। যোগদানের পর ১বছর ১মাস ১১ দিনের মাথায় গত ১৭ অক্টোবর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ খোরশেদ আলম চট্রগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলা শিক্ষা অফিসে বদলি হয়ে যান। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে বদলি করা হলেও নতুন কোনো শিক্ষা কর্মকর্তাকে পাংশা উপজেলায় পদায়ন করা হয়নি। এর আগ থেকেই অত্র দপ্তরে দুইজন সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার পদ শূন্য রয়েছে। সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার ৮টি পদের মধ্যে ৬জন কর্মরত রয়েছেন। দু’টি পদ দীর্ঘদিন যাবন শূন্য। ৬জন সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সমন্বয় করে ৮টি ক্লাস্টার পরিচালনা করছেন।

এ ব্যাপারে বুধবার ১৭ নভেম্বর দুপুরে পাংশা উপজেলা সরকারী প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও প্রেমটিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এ.কে.এম শরিফুল হুদা সাগর বলেন, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার পদ শুন্য থাকায় দাপ্তরিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। ২৭৩ জন সহকারী শিক্ষকের ১৩তম গ্রেডে উন্নীতকরণ কার্যক্রম আটকে আছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা অঞ্জলী রানী প্রামানিক বলেন, সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা টিপু সুলতান খান ভারপ্রাপ্ত (চলতি দায়িত্ব) শিক্ষা কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্বে আছেন। তিনি বলেন, পাংশা উপজেলায় ১২১টি সরকারী ও ৩টি বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার পদ ও দু’টি সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার পদ শূন্য রয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে শূন্য পদ পূরণের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.