নিজস্ব প্রতিবেদক : কুষ্টিয়া জেলা জাসদের সাবেক সভাপতি, কাজী আরেফ আহমেদ স্মুতি সংসদের সভাপতি, শিক্ষাবিদ, নীতিনিষ্ঠ রাজনীতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শোষনমুক্ত সমাজ নির্মানেরর স্বপ্নদ্রষ্টা, কুষ্টিয়া অঞ্চলের অন্যতম মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক শিক্ষাবিদ বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাবুব আলীর ২য় মৃত্যু বার্ষিকী (১৪ নভেম্বর,২০২১) পালনে স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোনবার বিকেল সাড়ে ৩টায় কুষ্টিয়া পাবলিক লাইব্রেরী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় সভাপতিত্ব করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিরুল ইসলাম মকলু।

বীর মুক্তিযোদ্ধার শাহাবুব আলী স্মৃতি সংসদ আয়োজিত এই স্মরন সভায় পূর্ব নির্ধারিত সিদ্ধান্তানুযায়ী বিভিন্ন ক্ষেত্রে কৃতিত্বের স্বাক্ষর ও অবদান রাখায় ৭জন গুনি ব্যক্তিকে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদানসহ শিশু-কিশোর চিত্রাংঙ্কন প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া ২৫জন শিশু কিশোরদের মেডেল প্রদানে পুরষ্কৃত করেন আয়োজক কমিটি।

স্মরণসভায় উপস্থিত থেকে অকাল প্রয়াত শাহাবুব আলীর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ও সামাজিক জীবনে কর্মময় স্মৃতি স্মরণ করে বক্তব্য রাখেন, প্রয়াত শাহাবুব আলীর ঘনিষ্ঠ রানৈতিক সহযোদ্ধা বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড. আব্দুল জলিল, জেলা জাসদের সভাপতি হাজী গোলাম মহসিন, জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন, জাসদ নেতা অসিত সিংহ রায়, রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ^বিদ্যালয়ের ট্রাষ্টি বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর জহুরুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম, খাদিমপুর মা:বা: বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম, অধ্যাপক দিলশাদ বেগম, নদী পরিব্রাজক দলের সভাপতি খলিলুর রহমান মজু, ড: এমদাদ হাসনায়েন, এনামুল হক বিশ^াস, জাসদ সহসভাপতি আহম্মেদ আলী, সৈয়দা হাবিবা, ফেয়ার পরিচালক দেওয়ান আকতারুজ্জামন, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আলম আরা জুঁই, মানবাধিকার কর্মী তাজনিহার বেগম, প্রমুখ। স্মরণ সভা পরিচালনা করেন শাহাবুব আলী স্মৃতি সংসদের আহ্বায়ক কারশেদ আলম।

এই আয়োজনে যেসব গুনিজনদের সম্মাননা দেয়া হয় তারা হলেন- মহান মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড: আব্দুল জলিল, শিক্ষাক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ^বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ড: মোহাম্মদ জহুরুল ইসলাম, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে গবেষনার জন্য এ্যাড: লালিম হক, ইতিহাস ঐতিহ্যে কুষ্টিয়া গ্রন্থের লেখক ড: এমদাদ হাসনায়েন, ত্যাগী সমাজ সেবক হিসেবে বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিরুল ইসলাম মকলু, লেখক ও গীতিকার হিসেবে এ আজাদ এম কবির এবং উদিয়মান কবি ও লেখক হিসেবে শেখ আকতার।
এসময় বক্তারা প্রয়াত এই বীরযোদ্ধা শাহাবুব আলীর জীবদ্দশায় বর্ণিল কর্মময় জীবনালেখ্য তুলে ধরে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ ও লালন করে তার অসমাাপ্ত সংগ্রামকে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন বক্তারা। প্রয়াত শাহাবুব আলীর হঠাৎ আকস্মিক মৃত্যু সকলকে শোক বিমুঢ় করেছে। তার এই অপুরণীয় শুন্যতা ব্যথিত করেছে সকলকে। তাই শাহাবুব আলীর জীবদ্দশার বিরল কর্মময় নীতি আদর্শ ধারণ করে শোষনমুক্ত সমাজ নির্মানের সংগ্রামে অবিচল থাকাই হবে তার প্রতি যথার্থ মূল্যায়ন ও সম্মান প্রদর্শন করা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.