মিরপুর প্রতিনিধি : ধানচাষে পার্চিং পদ্ধতি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে কুষ্টিয়ায়। এই পদ্ধতিতে চাষাবাদ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা।
জেলার মিরপুরে “ফসলের মাঠ হোক নিরাপদ” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ধানের জমিতে কীটনাশকের ব্যবহার কমানোর লক্ষ্যে ধানক্ষেতের মাঠে পার্চিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে।
শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় কৃষিবিডি’র উদ্যোগে  উপজেলার আমলা ব্লকে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়।
উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি মিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রমেশ চন্দ্র ঘোষ। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মিরপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জোয়ার্দ্দার, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মেডিকেল অফিসার ডা. জুবায়ের রহমান, শিক্ষক আবু হেনা মস্তাফা কামাল, কৃষিবিডি’র উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান, পরিচালক জাহিদ হাসান প্রমুখসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।
কৃষি কর্মকর্তা রমেশ চন্দ্র ঘোষ বলেন,ধানচাষে পার্চিং পদ্ধতি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে কুষ্টিয়ায়। এই পদ্ধতিতে চাষাবাদ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষক।
“ফসলের জমিতে পাখি বসার ব্যবস্থা করলে পাখি পোকা খেয়ে নিয়ন্ত্রন করবে। এতে জমিতে কীটনাশকের ব্যবহার কমানো যাবে।”
তিনি আরও বলেন, “নিরাপদ উপায়ে ফসল উৎপাদন করা গেলে একদিকে যেমন পরিবেশে ভালো থাকবে এবং কৃষকরা আর্থিকভাবে উপকৃত হবে। আমরা চেষ্টা করছি পার্চিং পদ্ধতিতে পোকা দমন করাকে কৃষক পর্যায়ে ব্যপকভাবে ছড়িয়ে দিতে।” সকল ধরনের কীটনাশক মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর, এ থেকে বিভিন্ন রোগ দেখা দিতে পারে। এজন্য পরিবেশ বান্ধব উপয়ে ফসলের পোকা দমনের কথা জানান মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মেডিকেল অফিসার ডা. জুবায়ের রহমান।
কৃষিবিডির উপদ্রেষ্টা হাবিবুর রহমান জানান, কৃষি ক্ষেত্রে উৎপাদন ব্যায় ও কীটনাশকের ব্যবহার কমানোর জন্য কৃষিবিডির পক্ষ থেকে মিরপুর উপজেলায় একশত বিঘা ধানের জমিতে পার্চিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে আশা করি কৃষকরা কীটনাশকের ব্যবহার কমিয়ে জৈবিক উপায়ে পোকা দমনে উদ্বুদ্ধ হবে।
এসময় উক্ত এলাকার প্রায় অর্ধশতাধিক মডেল কৃষকরা উপস্থিত ছিলেন। তারা এ কার্যক্রমকে সাধুবাদ জানিয়ে নিজ নিজ জমিতে এ পার্চিং করার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.