দৌলতপুর প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার পার্শ¦বর্তী বেগুনবাড়িয়া গ্রাম থেকে জোহার হোসেন নামে এক যুবককে অপহরণের পর ৫লক্ষ টাকা মুক্তিপন দাবির অভিযোগে দয়ের করা মামলায় কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক সজিবকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সে মিরপুর উপজেলার আমলা গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে। মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত ২৩ এপ্রিল দৌলতপুর উপজেলার বেগুনবাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা আবু আফফান ও মামুনের বাড়িতে আত্মীয়তার সূত্রে বেড়াতে আসেন কক্সবাজার জেলার মো. জোহার হোসেন (৩৩) নামে এক যুবক। পরদিন ২৪ এপ্রিল সন্ধ্যায় হোগলবাড়িয়া ইউনিয়নের কল্যাণপুর বাজার জামের মসজিদের নিকট থেকে জোহার হোসেনকে একটি সাদা মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায় দৃর্বৃত্তরা। পরে অপহৃত জোহারকে তারা মিরপুর উপজেলার আমলা গ্রামের একটি বাড়িতে আটকিয়ে রাখে। সেখানে জোহারকে মারধর সহ নানা প্রকার শারীরিক নির্যাতন করে সজিব ও তার সহযোগীরা। পরে জোহারের মোবাইল ফোন থেকে তার বোন তাসলিমার সাথে যোগাযোগ করে বিকাশ, রকেট নাম্বারে পাঁচ লক্ষ টাকা মুক্তিপন দাবি দাবি করা হয়।

অপহৃত জোহারের আত্মীয় মামুন বলেন, অপহরণকারীরা জোহারের বোন তাসলিমার কাছে বার বার মোবাইলে কল করে দাবিকৃত টাকা প্রেরনের দাবি করতে থাকে। মোবাইল ফোন লাইনে থাকা অবস্থায় নির্যাতন চালনো হয় জোহারের উপর আর নির্যাতনের সেই চিৎকার ও কান্নার শব্দ শোনানো হয় বোন তাসলিমা ও তার পরিবারকে। এমতবস্থায় জোহারের পরিবার আমাকে (মামুন) জোহারের অপরহণর বিষয়ে তথ্য দিলে দ্রুত বিষয়টি দৌলতপুর থানা পুলিশকে জানায় এবং অপহৃত জোহারকে উদ্ধারের জন্য বলি।

সাবেক ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতারের বিষয়ে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান অনিক বলেন, ‘সজিব এক সময় ছাত্রলীগ করতো, গত কমিটিতি প্রচার সম্পাদকও ছিলেন। তবে বর্তমানে আমাদের সাথে তার কোন সম্পর্কও নেই যোগাযোগও নেই। সে কোন আইন বিরোধী কাজ করলেও তার জন্য সংগঠন দায়ি থাকবে না।’

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দৌলতপুর থানার ওসি এস এম জাবীদ হাসান বলেন, গত ২৫ তারিখ রাতে মুক্তিপন দাবিতে যুবক অপহরণের সংবাদ পেয়ে ২৬ এপ্রিল সকালে অভিযানে নামে দৌলতপুর থানা পুলিশ। এসময় ফোন কলের সূত্র ধরে ভোর আনুমানিক চারটার দিকে অপহরণের মূল পরিকল্পনাকারী কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা সজিবকে তার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে অপহরণের সাথে জড়িত ৭জনকে সনাক্ত করে পুলিশ। পরে অপহৃত জোহারকে উদ্ধারে মিরপুর উপজেলার আমলা বিলপাড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে হাত পা মুখ বাধা অবস্থায় জোহারকে উদ্ধার করে পুলিশ। তবে এসময় পুলিশের অভিযানের ঘটনা টের পেয়ে জোহারকে ফেলে রেখে অপর অপহরণকারী চক্রের সদস্যরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশের উদ্ধারে মুক্তি পাওয়া জোহার নিজেই বাদি হয়ে গ্রেফতার সজিবকে প্রধান করে ৭জনের নাম উল্লেখ সহ অপহরণ ও মুক্তিপন দাবির অভিযোগে মামলা করেন। গতকাল বুধবার দুপুরে সজিবকে আদালতে সোপর্দ করলে সজিব ১৬৪ ধারায় বিচারিক হাকিমের কাছে দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন বলে তিনি জানান। এ মামলার এজাহারভুক্ত অপর আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশী অভিযান চলছে বলে ওসি জাবীদ হাসান জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.