নিজস্ব প্রতিবেদক : রবীন্দ্রনাথ খাঁটি বাঙালি ছিলেন। আমাদের সংস্কৃতির সাথে মিশে আছেন অত্যন্ত নিবিড়ভাবে। রবীন্দ্রনাথকে বাদ দিয়ে বাঙালি সংষ্কৃতিকে পুরোদমে চেনাজানা সম্ভব নয়। তিনি একজন মানবিক মানবিক মানুষ ছিলেন। আমাদের জীবনে বহুমাত্রিকভাবে রবীন্দ্রনাথ জড়িছে আছেন। কথাগুলো বলছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. খোন্দকার ফরহাদ হোসেন। যিনি সাহিত্যজগতে অনিক মাহমুদ নামে পরিচিত। বিশ^কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬১ তম জন্ম বার্ষিকী উদ্যাপন উপলক্ষে কুষ্টিয়ার রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচকের বক্তব্যে তিনি রবীন্দ্রনাথকে বিভিন্নভাবে বিশ্লেষণ ও  উপস্থাপন করেন।

রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও  রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬১ তম জন্ম বার্ষিকী উদযাপন কমিটির আহবায়ক প্রফেসর ড. মো. শহীদুর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য প্রদান করেন রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. শাহজাহান আলী। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে রবীন্দ্রনাথের জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোচনা করেন রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অফ ট্রাস্টিজের সদস্য সচিব মুহ. শামসুর রহমান বাবু, রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ^বিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের প্রফেসর নূর উদ্দীন আহমেদ ও রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার ড. মোছা. ইসমত আরা খাতুন। আলোচনাসভার শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর ও বাংলা বিভাগের সিনিয়র প্রভাষক এস এম হাসিবুর রশিদ তামিম। এসময় আরও বক্তব্য রাখেন ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের প্রভাষক মোফরাদ হোসেন সহ রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীবৃন্দ। আলোচনাসভা শেষে রবীন্দ্রনাথের গান, কবিতা আবৃত্তি ও নৃত্য পরিবেশন করা হয়। পুরো অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বাংলা বিভাগের প্রভাষক ও রোভার স্কাউটস এর সম্পাদক এম এ গাফফার মিঠু। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন রবীন্দ্র মৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ে সংগীত বিভাগের প্রভাষক ঋত্বিক মাহমুদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.