আবুল হোসেন,রাজবাড়ী প্রতিনিধি : গত বছর  করোনা মহামারির কারণে এসএসসি পরীক্ষা আংশিক (৩টি বিষয়ে) অনুষ্ঠিত হয়েছে। যে সকল বিষয় পরীক্ষা সম্পন্ন করা সম্ভব হয়নি, সেই সকল বিষয়ে নেয়া ফরম পুরনের অর্থ
শিক্ষার্থীদের স্ব-স্ব বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে ফেরত দেয় শিক্ষা অধিদপ্তর। তবে গোয়ালন্দ
উপজেলার দৌলতদিয়া আক্কাছ আলী হাইস্কুলে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের  ফরম পুরনের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এছাড়াও ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জাকির হোসেনের রিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের ঘর বিক্রি করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী।
জানা যায়, গত বছর করোনা মহামারির কারণে ফরম পুরনের পরও এসএসসি’র সব বিষয়ে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। সংক্ষিপ্ত পরিসরে পরীক্ষা গ্রহন করে শিক্ষা বোর্ডগুলো। শিক্ষার্থীদের পরিক্ষা না নেওয়া বিষয়ের টাকা  ও কেন্দ্র ফি বাবদ আদায় করা অব্যয়িত অংশ নিজ নিজ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে ফেরত প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহন করে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড গুলো। সে অনুযায়ী এসএসসি পরীক্ষার্থীরা নিকট থেকে  আদায় করা বোর্ড ফি থেকে  ৩১০ টাকা ফেরত দেয়ার কথা শিক্ষার্থীদের।
বোর্ডের নির্দেশনা অনুযায়ী গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া আক্কাছ আলী হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. জাকির হোসেন টাকা ফেরত পেলেও বিভিন্ন অপকৌশলে ৭০  শিক্ষার্থীদের  অর্থ ফেরত না দিয়ে আত্মসাত করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষার্থীরা ও অভিভাবক গন। এ ব্যাপারে ওই বিদ্যালয়ের( ২০২১ সনের এসএসসি পরিক্ষার্থী)  শিক্ষার্থীরা ১৬ মে  গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনে  লিখিত অভিযোগ করেছে।
শিক্ষার্থী মো. জনি প্রামানিক বলেন, শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক ফেরত প্রদান করা টাকা চাইতে গেলে প্রধান শিক্ষক  আমাকে অপমান ও ধমক দিয়ে তাড়িয়ে দেন। এবং বলেন, বিদ্যালয়ের বেতন
বাবদ ওই টাকা কেটে নেয়া হয়েছে। এছাড়া প্রশংসা পত্র আনতে গেলে ওই অতিরিক্ত টাকা প্রাপ্তি স্বাক্ষরসহ প্রশংসা পত্র বাবদ আরো ২০০ টাকা আদায় করেন।
অপর শিক্ষার্থী মো. আতিয়ার রহমান বলেন, ‘আমার বেতন মওকুফ ছিল। তার পরেও আমার টাকা ফেরত দেয়নি হেড স্যার। তিনি আমাদের টাকা আত্মসাৎ করায় আমরা বাধ্য হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ করেছি।’
এদিকে নদী ভাঙনের কারণে
হাই স্কুল টি কয়েক বছর আগে আইনদ্দিন বেপারী পাড়া  স্থানান্তর করা হয়। পূর্বের স্থানে থাকা স্কুলঘরটি অনুমতি  ছাড়া বিক্রি করে সেই টাকাও প্রধান শিক্ষক আত্মসাৎ করেছে বলে অভিযোগ করেছেন একাধিক এলাকাবাসি।
এসব বিষয়ে দৌলতদিয়া আক্কাছ আলী হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক বলেন, শিক্ষার্থীদের  অনুমতি সাপেক্ষেই তাদের ফরম পুরনের টাকা প্রদান করা হয়নি। এ মর্মে তারা স্বাক্ষরও করেছে। তিনি ওই টাকা আত্মসাৎ করেননি দাবি করে বলেন, শিক্ষার্থীদের  টাকা আমার কাছে আছে, কেউ এখনো ফেরত চাইলে তা দিয়ে দেওয়া হবে। এছাড়া বিদ্যালয়ের ঘর বিক্রির ব্যাপারে তিনি জানান, ৫২ হাজার টাকায় ওই ঘর বিক্রি করা হয়। সেই  টাকা তৎকালীন বিদ্যালয়ের সভাপতি কাছে ছিল। তিনি ওই টাকা স্কুলফান্ডে জমা দেননি। এ কারণে ওই টাকা আয়-ব্যায়ের কোন হিসেবও বিদ্যালয়ের নথিতে নেই।
এ ব্যাপারে গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আজিজুল হক খান বলেন,
শিক্ষার্থীদের  অভিযোগটি তদন্ত করে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.