নিজস্ব প্রতিনিধি॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে পারিবারিক কোন্দলের জেরে ছোটভাই আনারুল সেখের লাঠির আঘাতে মুক্তার শেখ (৬২) নামে বৃদ্ধ বড় ভাইয়ের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। পরকীয়া সংক্রান্ত পারিবারিক বিরোধ নিয়ে ঝগড়ার এক পর্যায়ে হাতাহাতির সময় লাঠি দিয়ে বড় ভাযের মাথায় আঘাত করলে অচেতন হয়ে মাটিতে পড়ে যান। পরে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেøক্সে নেয়া হলে সেখানে জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার মথুরাপুর ইউনিয়নের হিসনাপাড়া গ্রামে হত্যাকান্ডের এ ঘটনা ঘটেছে। নিহত মুক্তার শেখ একই গ্রামের মৃত জমির শেখের ছেলে। বৃহস্পতিবার সকালে নিহত মুক্তার শেখের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পরকীয়া সংক্রান্ত পারিবারিক বিরোধ নিয়ে ছোটভাই আনারুল শেখের স্ত্রীর সাথে বড়ভাই মুক্তার শেখের ঝগড়া বিবাদ হয়। এরই জের ধরে ছোটভাই আনারুল শেখ ক্ষুব্ধ হয়ে লাঠি দিয়ে বড়ভাই মুক্তার শেখের মথায় আঘাত করলে সে মাটিতে অচেতন হয়ে লুটিয়ে পড়ে। পরে তাকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।

হত্যাকান্ডের বিষয়ে দৌলতপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও মথুরাপুর গ্রামবাসী সাক্কীর আহমেদ জানান, ছোটভাইয়ের বৌয়ের সাথে ঝগড়া বিবাদের জের ধরে ছোটভাই আনারুল শেখ লাঠি দিয়ে তার বড়ভাই মুক্তার শেখের মাথায় আঘাত করলে সে মারা যান।

দৌলতপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) এস এম জাবীদ হাসান বলেন, ভাইয়ে ভাইয়ে বিরোধের জের ধরে ছোটভাইয়ের লাঠির আঘাতে বড়ভাই মারা গেছেন। নিহত বড়ভাই মুক্তার শেখের মরদেহ উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় এখনও কেউ অভিযোগ নিয়ে আসেনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.