নিজস্ব প্রতিনিধি॥ কুষ্টিয়ার মিরপুর থানার মটরসাইকেল চাপায় বন্ধুকে হত্যার দায়ে ইন্তাদুল হক(৩৪) ও রুহুল আমীন(৩৪) এবং দৌলতপুর থানার শ^াসরোধে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামী হোচেন আলী(৫৩)র যাবজ্জীবন কারাদন্ডসহ অর্থদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালহত। রবিবার দুপুর দেড়টায় কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ অতিরিক্ত আদালত-১এর বচারক তাজুল ইসলাম এবং আদালত-২এর বিচারক রেজাউল করীম জনাকীর্ণ আদালতে সাজাপ্রাপ্Í আসামীদের উপস্থিতিতে এই রায় দেন। রায়ে কারাদন্ডসহ ২৫হাজার টাকা জরিমান অনাদায়ে আরও এক বছর সাজার আদেশ দিয়েছেন আদালত।

যাবজ্জীবন সাজা প্রাপ্তরা হলেন দৌলতপুর উপজেলার নারায়নপুর দহকুলা গ্রামের আফছার মোল্ল্যার ছেলে ইন্তাদুল হক(৩৪), জালু মোল্লার ছেলে রুহুল আমিন(৩৪) এবং স্ত্রী হত্যায় দীঘলকান্দি পূর্বপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মৃত আসান আলীর ছেলে হোচেন আলী(৫৩)।

আদালতের মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৫ জানুয়ারী সন্ধায় দৌলতপুর উপজেলার নারায়ণপুর দহকুলা গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে ফিরোজ(২৫)কে তার বন্ধু ইন্তাদুল(২৫) ও জালু মোল্লার ছেলে রুহুল আমিন(২৫) বাড়ি থেকে বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে মটরসাইকেলে তুলে নিয়ে যায়। পরে ্ওইদিন রাত ১১টার দিকে একটি মাইক্রোতে মৃত ফিরোজের লাশ তার বাড়ির সামনে ফেলে রেখে চলে যায়। এঘটনায় পরিকল্পিত হত্যার অভিযোগ এনে ঘটনাস্থা মিরপুর হওয়ায় নিহত ফিরোজের পিতা বাদি হয়ে দুইজনের নামোল্লেখসহ মিরপুর থানায় হত্যা মামলা করেন।

অপর মামলায় ২০১১ সালের ১৮নভেম্বর রাতে পারিবারিক কলহের জেরে দৌলতপুর উপজেলার দীঘলকান্দি পূর্বপাড়া গ্রামের বাসিন্দা হোচেন আলী তার স্ত্রী মরজিনা খাতুন(৩৭)কে গলায় ওড়না পেচিয়ে শ^াসরোধ করে হত্যা করে। এঘটনায় নিহতের ভাই উপজেলার শেরপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের বাসিন্দা সামছুদ্দিন মন্ডলের ছেলে মারজেল মন্ডল বাদি হয়ে দৌলতপুর থানায় বোনের স্বামী হোচেন আলীকে আসামী করে দৌলতপুর থানায় হত্যা মামলা করেন।

মামলা দুটি তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ১৩ এপ্রিল নিহত ফিরোজের বন্ধু ইন্তাদুল এবং জালু মোল্লার ছেলে রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন মিরপুর থানার উপ পুলিশ পরিদর্শক ইকবাল হোসেন। সেখানে একই তরুনীর সাথে দ্বিমুখী প্রেমের প্রতিদ্বন্দী হওয়ার কারনে বন্ধু ইন্তাদুল ফিরোজকে কৌশলে মটর সাইকেল চাপাদিয়ে হত্যা করেছে বলে তদন্ত প্রতিবেদনে ্উঠে আসে। এবং ২০১২সালের ১৬ এপ্রিল দৌলতপুর থানার উপপুলিশ পরিদর্শক আবুল কালাম আজম পারিবাবিক কলহের জেরে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামী হোচেন আলীর বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন।

কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী জানান, পৃথক দুটি হত্যা মামলায় পুলিশের দেয়া তদন্ত প্রতিবেদনে দীর্ঘ স্বাক্ষ্য শুনানী শেষে আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীত ভাবে প্রমানিত হওয়ায় তাদের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডসহ প্রত্যেকের পৃথক ভাবে ২৫হাজার টাকা করে অর্থ দন্ডাদেশ অনাদায়ে আরও ১বছরের সাজা দন্ডাদেশ দিয়েছেন বিজ্ঞ আদালত।

Leave a Reply

Your email address will not be published.