নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন যারা ‘পচাত্তরের হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেকবার’ বলে শ্লোগান দেয় তাতে প্রমাণিত ৭৫’র ১৫আগষ্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যায় তাদের সম্পৃক্ততা রয়েছে। এই বাংলাদেশে জাতির পিতাকে হত্যাকারীদের কোন ঠাঁই নেই। এজন্য তিনি বিএনপিকে জাতির কাছে ক্ষমা চেয়ে বক্তব্য প্রত্যাহারের আহ্বান জানান। তিনি আজ সোমবার বিকেলে কুষ্টিয়া পৌর বিজয় উল্লাস চত্বরে শহর আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে এসব কথা বলেন। তিনি বিএনপি মহাসচিব মির্জাফখরুল ইসলামকে উদ্দেশ্যে করে বলেন সারা দেশের মানুষ তাদের ওই বক্তব্যের প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে। জাতির কাছে ক্ষমা চেয়ে বক্তব্য প্রত্যাহার করা না হলে রাজপথেই সমুচীত জবাব দেয়া হবে বলেও হুঁশিয়ারী দেন হানিফ।

বিক্ষোভ সমাবেশে হানিফ পদ্মা সেতু নিয়েও বিএনপি’র মিথ্যাচারের কথাও তুলে ধরেন। তিনি বলেন পদ্মা সেতুর ভিত্তি প্রস্তুর নাকী বিএনপি সরকা করেছিল। এমন নির্লজ্জ মিথ্যাচারের জন্য জাতি কখনো বিএনপিকে ক্ষমা করবেনা। হানিফ বলেন পদ্মা সেতু যাতে করে বাস্তবায়ন না হয় সেই লক্ষে বিএনপি নানা ষড়যন্ত্র শুরু করেছিল। বিশ^ব্যাংকের অর্থ্যায়ন বন্ধ করেছিল। কিন্তু বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা সরকার সকল ষড়যন্ত্র, সকল বাধা উপেক্ষা করে নিজস্ব অর্থ্যায়নে সেই সেতু বাস্তবায়নের কাজ শেষ করেছেন। আগামী ২৫জুন সেই স্বপ্নের সেতুর উদ্বোধন হবে।

বিএনপি’র সমালোচনা করে হানিফ বলেন তারা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকাকালীন দেশের উন্নয়ন করেনি। দুর্নীতি আর লুটপাট করে দেশের অর্থনীতিকে পঙ্গু করে দিয়েছিল। এতিমের টাকা আত্মসাতের দায়ে তাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আজ কারাগারে। অর্থলুটপাট আর সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের জন্য ছেলে তারেক রহমানও লন্ডনে পলাতক। তাদের মুখে দেশ ও দেশের উন্নয়নের কথা বেমানান।

তিনি কুষ্টিয়ার রাজনীতি প্রসঙ্গে বলেন আমরা চেয়েছিলাম কুষ্টিয়ার মানুষ দলমত নির্বিশেষে সবাইকে নিয়ে সহাবস্থান করতে। সামাজিক দ্বন্দ্ব সংঘাতের উর্ধে থেকে বসবাস করতে। কিন্তু বিএনপির কিছু নেতা সেই সহাবস্থান চাননা। সামাজিক দ্বন্দ্ব সংঘাত তৈরী করে জেলাকে অস্তিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন। তাদের হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে তিনি বলেন পীঠ চুলকায়ে ঘা বানাবেন না। এর পরিনাম ভালো হবেনা বলেও জানান তিনি।

কুষ্টিয়া শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি তাইজাল আলী খানের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বিশেষ অতিথি’র বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া-৪আসনের সাংসদ ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ। বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর উদ্দিন খান, সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী রবিউল ইসলাম, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শেখ হাসান মেহেদী, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা প্রমুখ।

পরে প্রধান অতিথি মাহবুবউল আলম হানিফের নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বড়বাজার রেলগেটে গিয়ে শেষ হয়। এতে কুষ্টিয়া পৌর ও সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের কায়েক হাজার নেতাকর্মী অংশ নেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.