নিজস্ব প্রতিনিধি॥ কুষ্টিয়া শহরের কোর্টপাড়া এলাকায় রাজু আহমেদ সড়কের হোল্ডিং ২০ ও বাসা নং ৪ চারতলা ভবনের ৩য় তলায় জনৈক রওশন আলীর বাসায় কর্মরত গৃহকর্মী লিলি খাতুনের ছেলে অটো চালক রনি হোসেন(৪২) তার স্ত্রী রতœা খাতুন (৩৫)কে শ^াসরোধে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহত রতœার স্বামী রনি হোসেন ও শ^াশুড়ি লিলি খাতুন(৬০) কে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার রাত পৌনে ১০টার দিকে সংঘটিত এই হত্যাকান্ডে নিহত রতœা খাতুন মিরপুর উপজেলার চারমাইল বিভাগ তাঁতিবন্দ গ্রামের আজিম মৃধার কন্যা। ১৮বছর পূর্বে রনি হোসেনের সাথে পারিবারিক ভাবেই বিয়ে হয় রতœার।

আটক হলেন সদর উপজেলার বটতৈল গ্রামের মৃত আলতাফ হোসেনের স্ত্রী ঘটনাস্থলের গৃহকর্মী লিলি খাতুন ও তার ছেলে নিহতের স্বামী অটো চালক রনি হোসেন।

নিহতের বড় বোন স্বপ্না খাতুনের অভিযোগ, ‘রনি বেশকিছুদিন আগে গোপনে এলাকার এক স্বামী পরিত্যাক্তা নারীকে গোপনে বিয়ে করেছে। বিষয়টি গত ৭/৮দিন পূর্বে জানাজানি হওয়ায় রতœার সাথে স্বামী রনির কলহ ঝগড়া চলছিলো। দুই দিন আগে রনি তার ২য় স্ত্রীকে বাড়িতে তুলতে চাইলে দুই কন্যাসহ ৪সদস্যের অভাবি সংসারে আরও একজনকে নিয়ে আসতে চাওয়ায় রতœার আপত্তি করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রনি রতœাকে মারধরও করেছে। সংবাদ পেয়ে আমার মা বুধবার দুপুরে রতœার বাড়িতে যায়। এদিন সন্ধার দিকে কৌশলে রনি রতœাকে শহরের কোর্টপাড়ায় যে বড়িতে রনির মা গৃহকর্মীর কাজ করে সেখানে নিয়ে যায়। ওখানেই রনির মা লিলি খাতুনের সামনে রতœাকে হাতুর দিয়ে মাথায় আঘাত করে এবং গলাটিপে খুন করেছে।’ নিহত রতœার ১৮ বছরের সংসার জীবনে অষ্টম শ্রেনীতে পড়ুয়া সিনথিয়া(১৪) এবং সাজিয়া(১১)নামের দুই কন্যা সন্তান রয়েছে বলে জানায় স্বপ্না খাতুন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কুষ্টিয়া মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক সাব্বিরুল আলম জানান, ‘বুধবার রাতে স্ত্রীকে শ^াসরোধে হত্যা করার অভিযোগের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মৃত্যুর সঠিক কারন জানতে ময়না তদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসাপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। এঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহতের স্বামী রনি ও শ^াশুড়ি লিলি খাতুনকে আটক করেছে পুলিশ। এঘটনায় নিহতের পিতা আজিম মৃধা বাদি হয়ে রনি ও রনির মা লিলি খাতুনের নামোল্লেখসহ এজাহার দিয়েছে, মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.